আমাদের Telegram এ ফলো করুন সবার আগে সর্বশেষ আপডেট পান Click Here

Google News এ ফলো করুন Click Here

অজানা লোকের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে কে পাঠাচ্ছে কোটি কোটি টাকা

Current India Economy Features

প্রয়োজনীয় কাজে ব্যাঙ্কের পাসবুক আপডেট করাতে গেলেন। করিয়ে দেখলেন আপনার অ্যাকাউন্টে কেউ একজন কয়েক লাখ টাকা পাঠিয়ে দিয়েছে। দেখে আপনি খুশি হবেন! নাকি বুকে হাত দিয়ে বসে পড়বেন ঠিক করতে পারছেন না?
চমক লাগলেও এমন ঘটনা বিহারে একটি নয়, একাধিক অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রে সত্যিই ঘটেছে।

বিহারের কাটিহার জেলায় দুটি ছাত্রের গ্রামীন ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্টে কয়েকশো কোটি টাকা ঢুকেছে। স্কুলের ব্যবহার্য কারণে দুই ছাত্রই সরকারি অনুদান পেয়ে থাকে। সেই কারণেই স্টেট ব্যাঙ্কের নির্দিষ্ট ইউনিটে পাসবুক আপডেট করাতে যায়। আপডেট করিয়ে যা দেখা যায় তাতে চোখ ছানাবড়া! একজনের অ্যাকাউন্টে ঢুকেছে  ৬০ কোটি,  অন্যজনের ঢুকেছে ৯০০ কোটি টাকা!

ব্যাঙ্কের অভ্যন্তরীণ মহলেও তা নিয়ে রীতিমতো শোরগোল শুরু হয়ে যায়।
উক্ত ব্যাঙ্কের ব্রাঞ্চ ম্যানেজার মনোজ গুপ্তা সাথে সাথে টাকা তোলার প্রক্রিয়া বন্ধ করে দেন।
ছাত্র দুজনের নাম যথাক্রমে গুরুচন্দ্র বিশ্বাস ও অসিত কুমার।

কোথা থেকে এল অল্পবয়সী দুই ছাত্রের অ্যাকাউন্টে এতগুলো টাকা? হদিশ নেই।
শুধু কাটিহার জেলের দুই ছাত্রই নয়, খাগাড়িয়া জেলাতেও ঘটেছে এমন অবাক করা ঘটনা। নাম রঞ্জিত দাস। প্রাইভেটে ছাত্রছাত্রী পড়ান। তাঁর অ্যাকাউন্টেও হঠাৎ করে ৫,৫০,০০০/- টাকা এসে যায়। ব্যাঙ্কের ভুলে, নাকি সেই অজানা ধনকুবের যিনি আশীর্বাদ স্বরূপ সকলের অ্যাকাউন্টে লক্ষ কোটি ইচ্ছেমতো টাকা পাঠিয়ে যাচ্ছেন সে -ই! ঠিক বোঝা যাচ্ছেনা।

তবে রঞ্জিত দাস মশাইকে স্যালুট মারতেই হবে, কেননা তিনি এক কাঠি ওপরে। ব্যাঙ্ক টাকা ফেরত চাওয়ায় তিনি সাফ অস্বীকার করেছেন। তাঁর মতে,”কোভিড ও লকডাউন পরিস্থিতি বিবেচনা করে সরকার আমার অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠিয়েছেন। আজকাল ব্যাঙ্ক নানারকম প্রতারণা করছে। আমি কেন টাকা ফেরত দিতে যাবো?”
শুধু তাই নয়, রঞ্জিত দাস জানিয়েছেন ইতিমধ্যে জরুরি প্রয়োজনে তিনি ওই টাকা থেকে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা খরচও করে ফেলেছেন!
রঞ্জিত দাস এখন পুলিশের হেপাজতে।