কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

আবার অপমান! শ্রাবন্তীর দলত্যাগ নিয়ে ‘ভোডাফোন’-কে তথাগতর কটাক্ষ

Current India Entertainment Features Politics

তথাগতই পথ প্রদর্শক। না, এই ‘তথাগত’ বুদ্ধ নন, বিজেপি সদস্য বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ তথাগত রায়।যিনি নিজের দলের অন্য আর এক সদস্যের ছবির পাশে পাগ প্রজাতির কুকুরের ছবি বসিয়ে অনায়াসে লিখে দেন ‘ভোডাফোন আবার পশ্চিমবঙ্গে’ (উল্লেখ্য, ওই বিশেষ প্রজাতির কুকুর ছানাটিকেই ভোডাফোন টেলিকম সংস্থা তাদের বিজ্ঞাপনে ব্যবহার করত)। এবার তথাগতর পথ অনুসরণ করেই জনৈক ব্যক্তি ট্যুইটে শ্রাবন্তীর ছবির পাশে পাগ কুকুরের ছবি বসিয়ে মন্তব্য করে বসলেন , “শুনলাম ভোডাফোন নাকি শ্রাবন্তীর শোকে মর্মাহত!”


ওয়াকিবহাল মহল জানেন এই ‘ভোডাফোন’ আসলে কে? নিশ্চিত করেই বলা যায় তিনি হলেন কৈলাশ বিজয়বর্গীয়। গতমাসের কথা। রসিকতা সুলভ মেজাজে নিজের ট্যুইটে তথাগত কৈলাশের ছবির পাশে ওই বিশেষ কুকুরটির ছবি দিয়ে ক্যাপশনে লিখে বসেন, “ভোডাফোন আবার পশ্চিমবঙ্গে”। পরে অবশ্য সেটি ডিলিট করে ক্যাপশন ছাড়াই ছবিযুগল পোস্ট করেন। তথাগর এই রসিকতাকে মোটেই হাল্কাভাবে নেয়নি গেরুয়া শিবিরের একাংশ।

কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304
সেই বিতর্কিত পোস্টের ছবি

এবার বরিষ্ঠ নেতার দেখানো পথেই জনৈক ট্যুইটকারী সদ্য বিজেপি ছেড়ে দেওয়া অভিনেত্রী শ্রাবন্তীর ছবির পাশে ‘ভোডাফোন’ কুকুরের বিমর্ষ ছবি জুড়ে ফুল ও ধূপকাঠি সমেত ট্যুইট করে কৈলাশ বিজয়বর্গীয়কেই পরোক্ষভাবে খুঁচিয়ে দিলেন। এখানেই শেষ নয়, ওই ট্যুইটখানা তথাগত রায় নিজেই শেয়ার করে রিট্যুইট করে লিখেছেন ,”The twit says Vodafone is heartbroken at the exit of Srabanti.” ইঙ্গিতটা যে কোনদিকে নিশ্চয়ই সেটা বলার অপেক্ষা রাখেনা!


প্রসঙ্গত, চলতি বছরের মে মাসেই তথাগত রায় শ্রাবন্তী সহ অন্যান্য নায়িকাদের ‘নগরের নটী ‘ বলে উল্লেখ করে মদন মিত্রের সাথে নৌকাবিহারের প্রসঙ্গে প্রশ্ন ছুঁড়েছিলেন, “তাঁদের টিকিট দিয়েছিল কে? কেনই বা দিয়েছিল? দিলীপ-কৈলাশ-শিবপ্রকাশ-অরবিন্দ প্রভুরা একটু আলোকপাত করবেন কি?”


উল্লিখিত চার নেতা কতটা আলোকপাত করেছিলেন জানা নেই, তবে মদন মিত্র উত্তরে বলেছিলেন, “আমি রাজনীতির প্লেবয়!পরেরবার নৌকাবিহারে আমি তথাগতবাবুকে ডেকে নেব। বাংলার মাটিতে দাঁড়িয়ে বাংলার মেয়েদের নটী-নর্তকী বলছে! এতে মেয়েদের অসম্মান করা হয়”।


এরপর দিনে দিনে তথাগত কৈলাশ বিজয়বর্গীয় সহ চার নেতাকে ক্রমাগত আক্রমণ শানিয়ে গেছেন। স্বাভাবিক ভাবেই আজকের শ্রাবন্তীর দলত্যাগ সম্পর্কে কৈলাশ বিজয়বর্গীয়র প্রতিক্রিয়া জানতে চাইবেন বৈকি! তাই বলে আবারো সেই ‘ভোডাফোন!’ বিজেপি শিবির এটা ভালো চোখে দেখবেন কি? সেটাই বড় প্রশ্ন।