VoiceBharat News images 99

সকলেই সুপ্রিম কোর্টের রায়ের কথা জেনেছেন। এবার পরিবেশবান্ধব বাজি সম্পর্কে কিছু কথা।
সুপ্রিম কোর্ট প্রথমে পরিবেশবান্ধব বাজি পোড়ানোর সপক্ষে রায় দিলেও হাইকোর্টে পরিবেশ কর্মী রোশনি আলির মামলায় প্রশ্ন ওঠে “পরিবেশবান্ধব বাজি চেনা যাবে কোন মাপকাঠি দিয়ে?”

VoiceBharat News 1635747898 cracker


বারবার ‘পরিবেশবান্ধব’ শব্দটি শুনে শুনে কারো কারো মনে হয়তো প্রশ্ন জাগছে, পরিবেশবান্ধব বাজি কোনগুলিকে বলে? কীভাবে তা তৈরি হয়? সকলের জ্ঞাতার্থে আরো একবার জানানো প্রয়োজন উত্তরটা এইমূহুর্তে পশ্চিমবঙ্গের বাজি বিক্রেতাদেরও জানা নেই।

সুপ্রিম কোর্ট শেষপর্যন্ত বাজি পোড়ানোর সপক্ষে চূড়ান্ত রায় দিয়েছেন একটিই মাত্র মাপকাঠির সাপেক্ষে, তা হল — নির্দিষ্ট ওই বাজির প্যাকেটে থাকা কিউআর কোড, যা দিয়ে পরিবেশবান্ধব বাজি শনাক্ত করা যাবে বলেই জানিয়েছেন বাজি ব্যবসায়ীদের পক্ষে থাকা আইনজীবী। আইনজীবী জানিয়েছেন ইতিমধ্যে বেশকিছু পরিবেশবান্ধব বাজি খুচরো বাজারে এসেও গিয়েছে। সুতরাং যে পরিমাণ পরিবেশবান্ধব বাজি খুচরো বিক্রেতারা পেয়েছেন সেটুকুই বিক্রী করার আইনসম্মত অনুমতি মিলেছে।

VoiceBharat News 1635762685 hc crackers


অবশ্য এর একটা স্থায়ী সমাধানের ব্যবস্থাও করা হয়েছে। তামিলনাড়ুতে গ্রীন ক্র্যাকার্স বা পরিবেশবান্ধব বাজি তৈরির কর্মশালায় যোগ দিতে চলেছেন পশ্চিমবঙ্গের বাজি বিক্রেতারা। নভেম্বর মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহেই ওই কর্মশালা আয়োজিত হবে বলেই খবরে প্রকাশ।

এবছর বাজি বিক্রেতারা গ্রীন ক্র্যাকার্স তৈরি করতে শিখে গেলে পরের বছর থেকেই তা প্রয়োগ করে বাজি তৈরি করতে পারবেন। আতশবাজি উন্নয়ন সমিতি জানাচ্ছে চম্পাহাটি থেকে ১৭ জন এবং বজবজের নুঙ্গি থেকে ১৪ জন নির্বাচিত বাজি প্রস্তুতকারী ওই কর্মশালায় যোগ দিতে চলেছেন। উল্লিখিত ওই বাজি বিক্রেতা সমিতির বয়ান থেকেই জানা যাচ্ছে, “কোল্ড ফায়ার এবং পরিবেশবান্ধব বাজি কীভাবে তৈরি করতে হয় সে বিষয়ে আমাদের হাতেখড়ি হবে”।


গ্রীন ক্র্যাকার্স বা পরিবেশবান্ধব বাজি এমন কিছু উপাদান দিয়ে তৈরি যা থেকে মানুষের দেহে আগুন লাগার সম্ভাবনা কম; এই বাজিতে বেরিয়াম সল্ট ব্যবহার করা হয়না ফলে দূষণ বা শ্বাসপ্রশ্বাস জনিত ক্ষতির সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। তামিলনাড়ুর কলেজে ১২ দিনের জন্য ওই কর্মশালা আয়োজিত হবে। নাগপুরের National Environmental Research Institute দ্বারা সার্টিফিকেট পেলে তবেই এই বাজি বিক্রী ও প্যাকেটে গ্রীন ক্র্যাকার্সের নির্দিষ্ট লোগো ব্যবহার করার ছাড়পত্র পাবেন বাজি প্রস্তুতকারীরা।


সুতরাং এইবছর আংশিক হলেও পরের বছর থেকে খোলাবাজারে পরিবেশবান্ধব বাজি বিক্রী হতে দেখা যাবে, এমনটাই ধরে নেওয়া যায়।

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com