কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

কুনালের কন্ঠে দিলীপ ঘোষকে সমর্থনের সুর!তথাগত-কে ‘ভাঁড়সম্রাট’ বলে কটূক্তি

Current India Features Politics

একেই কি বলে উলটপুরান! যে তথাগত রায় রাজ্যের মহিলা মুখ্যমন্ত্রীর অপমানের প্রতিবাদে গর্জে উঠলেন, তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র তাঁকেই কিনা ‘ভাঁড়’ বলে আখ্যা দিলেন? সম্প্রতি এক ট্যুইটে বিজেপির বর্ষীয়ান নেতাকে এই ভূষণেই ভূষিত করলেন কুনাল ঘোষ; শুধু তাই নয়, যে দিলীপ ঘোষ মমতা ব্যানার্জীকে অশালীন মন্তব্যে আক্রমণ করেছিলেন, উল্টে তাঁকেই সম্মান দেখিয়ে টঙে তুলে দিলেন কুনাল ঘোষ!


এই সূত্রে রাজ্যবাসী আরো একবার দেখে নিল রাজনীতিকদের পাল্টি চেহারা। একেই চতুর্দিকে রঙ বদলের হিড়িক। তার ওপর রাজ্যের প্রবীণ মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুশোক বঙ্গ রাজনীতিকদের কালারফুল ক্যারেক্টার আরো খানিকটা ঘেঁটে দিয়ে গেল। কুনাল-তথাগতর বিরোধের এই কিসসার সূত্রপাতও সেখান থেকেই।

কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304


গতকাল প্রয়াত মন্ত্রীর শোভাযাত্রায় দলমত নির্বিশেষে অনেক ব্যক্তিত্বই শ্রদ্ধা জানাতে এসেছিলেন। সেই সূত্র ধরে ট্যুইটারে কুনাল ঘোষ লেখেন, ” বিজেপির যে দুজন নেতা সাতসকালে সিবিআই পাঠিয়ে সুব্রত মুখোপাধ্যায়কে গ্রেপ্তারের চক্রান্তে জড়িত ছিলেন, এখন প্রচারের জন্য ন্যাকামি করে শোকজ্ঞাপন করতে সামনে গেলে নিজ দায়িত্বে যাবেন..”।

কুনাল ঘোষের এই ট্যুইটে হুমকির সুর পেয়ে তার প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে তথাগত রায় বলেন, “হিন্দু যেমন মুসলমান হলে গরু খাবার যম হয়। ঠিক তেমনি এই ভাঁড়টি মমতাকে গালাগালি দিয়ে, সারদা কেসে জেলে গিয়ে…অতীতের পাপ স্খালন করার জন্য সবচেয়ে বড় মমতাপন্থী হয়ে উঠেছে..”।


এবারেই পাল্টা আছড়ে পড়ল কুনালের ট্যুইট, যেখানে তথাগত রায়কে নিচু করে স্পষ্টতই দিলীপ ঘোষকে তোল্লাই দিলেন কুনাল ঘোষ। তিনি ট্যুইট করে লিখেছেন, “রাজ্যপাল পদ শেষ হলে বাংলায় নেতা হতে এসেছিলেন তথাগত। দিলীপ ঘোষ ঢুকতে দেননি। দিলীপবাবু নিজে তো তবু বিধায়ক সাংসদ হয়েছেন। এই ভাঁড়সম্রাট তথাগত দিলীপের জুতো নালিশের (‘পালিশ’ বলতে চেয়েছেন কি!) যোগ্য নন। রোজ অবসাদ থেকে বিষোদ্গার করছেন.. গেঞ্জি, জাঙিয়া আর ট্যুইট ছাড়া এটার আছেটা কি?”


প্রসঙ্গত, দুদিন আগে দিলীপ ঘোষের কুরুচিকর মন্তব্যের প্রতিবাদ করে এই তথাগত রায়ই বলেছিলেন, “মমতাকে বারমুডা পরতে বলা ” রীতিমতো অশালীন ইঙ্গিত।

আজ কুনাল ঘোষ সেই তথাগত রায়ের ‘গেঞ্জি, জাঙিয়া’ নিয়ে টানাটানি করে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেই পরোক্ষে খানিকটা অপমান করলেন না কি?

নেতাদের একে অপরকে কটূক্তির জেরে রঙমেলান্তি খেলা মেলানোটাই যে এবার রাজনীতি বিশিষজ্ঞদের কাছে মুশ্কিল হয়ে দাঁড়াচ্ছে!