কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

গোয়ায় ঘাসফুলের জমি রেডি, এবার শুধু বীজ পোঁতার অপেক্ষা

Current India Features Politics

কর্মসূচির নামই ছিল গোয়েঞ্চি নভি সকাল। ২৮ তারিখ গোয়ায় পা রেখেই মমতা ঘোষণা করলেন এবার গোয়ায় নতুন সকাল আসতে চলেছে। শাসক দল কালো পতাকা দেখিয়েও রুখতে পারেনি, প্রাক সভা প্রোগ্রামের অনুমতি বাতিল হওয়ায় তৃণমূল সাংসদরা ফুটপাতই সভার কাজ চালিয়ে গেছেন, বললেন মমতা। ভিনরাজ্যে বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর একক সভা এই প্রথম। তাই এই সভাকে আলাদা গুরুত্ব দিয়েই দেখতে চান রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

গোয়ায় পৌঁছেই বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা — বাংলা যদি আমার মাতৃভূমি হয়, গোয়াও মাতৃভূমি। প্রকাশ্য সভায় তৃণমূল নেত্রীর দাবি “তৃণমূল মরে যাবে তবু আপস করবেনা। আমাদের একটা সুযোগ দিন। আমরা গোয়ায় নতুন সকাল আনব”।

কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304


বাংলায় তৃণমূলের একাধিক জনহিতকর প্রকল্পের কথা গোয়ার মানুষের কাছে নিজে মুখেই তুলে ধরেছেন মুখ্যমন্ত্রী। গতিধারা, কন্যাশ্রী সহ একাধিক উন্নয়নমূলক প্রকল্প রূপায়নের পাশাপাশি গোয়ার তরুণসমাজ ও নারীদের কল্যাণমূলক কর্মসূচিতে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তিনি বাংলা এবং গোয়াকে এক ও অদ্বিতীয়রূপেই দেখতে চান সেই উল্লেখ করে বলেন, “পশ্চিমবঙ্গে সমস্ত মেয়েদের কন্যাশ্রী দেওয়া হয়। সাইকেল দেওয়া হয়। দ্বাদশ শ্রেণীতে ট্যাব দেওয়া হয়। বিয়ের সময়ও অর্থ সাহায্য দেওয়া হয়”। এরপরই আসে জনপ্রিয় ‘লক্ষীর ভান্ডার’ প্রকল্পের কথা। তৃণমূল ক্ষমতায় এলে গোয়াতেও সেসব প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে, একথা স্পষ্ট উল্লেখ করে মমতা সগর্বে বলেন, “আমি গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী হবনা, কিন্তু গোয়ার উন্নয়নের জন্য কাজ করব”।


গোয়ায় তিনি আগেও রেলমন্ত্রী থাকাকালীন এসেছেন, তিনি গোয়ারই মেয়ে, একথাও বলতে গিয়ে সেখানকার সাংস্কৃতিক যোগসূত্রকেও স্বীকার করে নিলেন নিজস্ব সাবলীল ভাষায়। মমতা বলেন, “পশ্চিমবঙ্গের সাথে গোয়ার তিনটে জিনিসের মিল রয়েছে। ফিস, ফুটবল, ফোক কালচার”।


এই গোয়ার মাটিতেই মমতার সর্ব ব্যাপক ঘোষণা — TMC মানে Temple Mosk Church. “আমরা বিভেদের রাজনীতিকে প্রশ্রয় দিইনা “। দলের এই ব্যাখ্যা কি আগে থেকেই পরিকল্পিত ছিল? নাকি একেবারে স্বতঃস্ফূর্ত মূহুর্তের প্রকাশ! তা নিয়ে জল্পনা এখনও চলছে, তবে গোয়ার বাতাসে যে তার প্রতিধ্বনি ছড়িয়েছে তার প্রমাণ — দলে দলে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের তৃণমূলে যোগদান।

প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফ্যালেরিও সহ নাফিসা আলি, রেমো ফার্নান্ডেজ, লাকি আলি কে নেই সে দলে? সদ্য যোগ দিলেন লিয়েন্ডার পেজ। ঘোষিত ভাবেই তৃণমূলের সাথে গাঁটছড়া বাঁধতে চলেছে ‘গোয়া ফরোয়ার্ড পার্টি’। তার ওপর গোয়ার মুখ্যমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে প্রাক্তন রাজ্যপাল সত্যপালের করা দুর্নীতির অভিযোগ শাসকদল বিজেপিকে বেশ খানিকটা বেকায়দায় ফেলেছে , তাতে সন্দেহ নেই।


জমি তৈরি, এবার গোয়ায় জোরদার খেলা হবে। এমনটাই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।