আমাদের Telegram এ ফলো করুন সবার আগে সর্বশেষ আপডেট পান Click Here

Google News এ ফলো করুন Click Here

চলে গেল, বলে গেলনা : শুভেন্দুর আক্ষেপ

Current India Features Politics

বাবুল সুপ্রিয়র দলবদল প্রসঙ্গে শুভেন্দুর অধিকারীর মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেল।
শনিবার এক জনপ্রিয় সংবাদ মাধ্যমের সাক্ষাৎকারে শুভেন্দু জানালেন “বাবুল আর আমার জন্মের সাল তারিখ বছর এক! অকৃত্রিম বন্ধু বাবুল”, একথা বলতে গিয়ে বাস্তবিকই শুভেন্দুর গলা ধরে যায়।

এরপরেই তিনি আক্ষেপ প্রকাশ করেন “না গেলেই ভালো হত”।
বোঝা যায় সম্পর্কের সুতো ছিঁড়ে যাওয়ায় শুভেন্দু ব্যক্তিগত ভাবে খুবই আহত হয়েছেন। কথা বলার ধরনে সেটা একেবারেই চাপা থাকছিলনা।
আদতে শুভেন্দু তো ‘মাটির মানুষ’!
পার্টির বাইরেও যে ব্যক্তিগত একটা সম্পর্ক থাকেই,  বাবুল সুপ্রিয়র বিচ্ছেদ বেদনায় শুভেন্দুর প্রতিক্রিয়া সেটাই দেখিয়ে দিল।


পরক্ষণেই অবশ্য নিজেকে সামলে নিয়েছেন বিজেপির পোড়া খাওয়া এই নেতা — সচেতন হয়ে বলে ওঠেন,”দল আমিও একসময় ছেড়েছি। কিন্তু মন্ত্রীসভা থেকে পদত্যাগ করে, পার্টিকে জানিয়ে তারপর”।

এই বক্তব্যেই স্পষ্ট হয়ে যায়, বাবুলের না বলে চলে যাওয়াটাই মর্মাহত করেছে শুভেন্দু অধিকারীকে। সেটা স্বাভাবিক। কিন্তু মন্ত্রীত্ব হারিয়ে বাবুল সুপ্রিয় যে আগে থেকেই সর্বহারা! আর এটাকেই লক্ষ্য করে তীর নিক্ষেপ করেছেন শমীক ভট্টাচার্য সহ অন্যান্য বিজেপি নেতৃবৃন্দ।
শুভেন্দুর ভঙ্গি এক্ষেত্রে কিছুটা নরম। দুঃখ – রাগ – ক্ষোভ মিলেমিশে এক মিশ্র প্রতিক্রিয়াই প্রকাশ পেয়েছে।

রাজনীতিতে বাবুলের অবদান ‘গোল্লা’ সেটা জানাতেও ভোলেননি। তুখোড় হিন্দি আর ইংরেজি বলে, দারুণ গান গায় — কিন্তু বিজেপি দলের সদস্য হিসেবে তার যে কোনো ভূমিকাই ছিলনা সেটা সরাসরিই বললেন শুভেন্দু অধিকারী।


টালিগঞ্জে থার্ড পজিশন পাওয়া নিয়ে কটাক্ষ করে বাবুল সুপ্রিয়কে  ”ব্যাড অর্গানাইজার” বলে ধুয়ে মুছে সাফ করে দিলেন একেবারে! “না গেলেই ভালো হত” দিয়ে শুরু করে সব শেষে শুভেন্দুর উপসংহার “বাবুল চলে যাওয়ায় বিজেপির কিছু এসে যায়না”।


তৃণমূলের কাছ থেকে ব্যক্তিগত, পারিবারিক সুখ স্বাচ্ছন্দ্য সুবিধা পাওয়ার বিনিময়েই যে বাবুল সুপ্রিয় পাল্টি খেয়েছেন সেটাও শুভেন্দু গোদা বাংলায় জানিয়ে দিলেন।
কিন্তু এটা তিনি জানলেন কীকরে?
অভিন্ন হৃদয় বন্ধুই নাকি জানিয়েছেন শুভেন্দুকে।