আমাদের Telegram এ ফলো করুন সবার আগে সর্বশেষ আপডেট পান Click Here

Google News এ ফলো করুন Click Here

ত্রিপুরায় বিজেপির দাঙ্গাকে ‘ব্যতিক্রমী ঘটনা’ বলে উড়িয়ে দিলেন সুকান্ত

Current India Features Politics

সদ্য নিযুক্ত বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার প্রথম দিনেই পশ্চিমবঙ্গকে তালিবানি শাসনের সাথে তুলনা করেছেন। আসলে তাঁর লক্ষ্য তৃণমূল কংগ্রেস।
তৃণমূলকেই ‘তালিবান‘ বলেছেন সুকান্ত। প্রসঙ্গত, ত্রিপুরায় সভা করতে চেয়েও বারবার ব্যর্থ হয়েছেন তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক অভিষেক ব্যনার্জী। ৪ঠা নভেম্বর পর্যন্ত করোনা পরিস্থিতির কারণে জনসমাবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে ত্রিপুরায়।


সেই কথার সূত্র ধরেই ত্রিপুরার প্রসঙ্গ এসে পড়ে। সংবাদ মাধ্যমে সুকান্ত মজুমদার শান্ত ভঙ্গীতেই বলছেন,”বিজেপি শাসিত রাজ্যে  বিরোধীদের সমান গুরুত্ব দেওয়া হয়”।
এর বিপরীত উদাহরণ দিতে গিয়েই সুকান্ত তৃণমূল কংগ্রেসকে ‘তালিবান ‘ আখ্যা দিয়ে বলেন,”আফগানিস্তানে জোব্বা পরে বন্দুক হাতে যারা ঘুরে বেড়াচ্ছেন, শুধু তারাই তালিবান নন। আমার মত না মানলেই তোমাকে মেরে ফেলবো — এটাই তালিবানি মানসিকতা, যেটা এ রাজ্যের শাসক দলের মধ্যে দেখা যাচ্ছে”।


এরপরই সুকান্ত অভিযোগ করেন,”তৃণমূল বিরোধী রাজনীতি করার জন্য বিজেপি কর্মীদের পিটিয়ে মারা হচ্ছে, এমনকি তাদের কুকুরগুলোকেও ছাড়া হচ্ছেনা। বিজেপি , সিপিএম এইসব বিরোধীরা সম্মেলনের সঙ্গে রাজনীতি করতে পারছেনা”।


এই পর্যন্ত শুনে সাংবাদিকরাও আকাশ থেকে পড়েন। কেননা সেপ্টেম্বরের  ৮ তারিখের স্মৃতি এখনো যে ফিকে হয়ে যায়নি ! ওই দিন গোটা ত্রিপুরা জুড়ে যে তান্ডব চালিয়েছিল বিজেপি কর্মীরা সেটা বোধহয় বেমালুম ভুলে মেরে দিয়েছেন নব্য নিযুক্ত বিজেপির রাজ্য সভাপতি।


জায়গা জায়গায় সিপিএমের পার্টি অফিস ভাঙচুর, গাড়িতে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া, সিপিএম নেতার বাড়িতে ঢুকে হামলা, সংবাদ পত্রের অফিস ভাঙচুর, সাংবাদিকদের মারধোর — এসব কিছু এত চটজলদি ভুলে গেলেন কী করে সুকান্ত!

আক্রান্ত বিরোধীদল এবং তাদের আক্রান্ত কুকুরের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে,  সিপিএমের পক্ষে ঝোল টেনে তিনি যতই শিষ্ট মন্তব্য রাখুন না কেন, অজ্ঞতা ধরা পড়েই গেল সেটাও সরাসরি সংবাদ মাধ্যমেরই কাছে।


ভুলে যাওয়া ৮ সেপ্টেম্বরের কথা মনে করিয়ে দিতেই তিনি চটপট ভ্রম শুধরে বলে উঠলেন,” ত্রিপুরায় যা ঘটেছে সেটা ব্যতিক্রমী ঘটনা। বিজেপি এমন নয়”।
স্বভাবতই প্রশ্ন উঠছে — এরাজ্যের বিরোধী দল ক্ষমতায় এসে শাসক হয়ে উঠলে ওই রাজ্যের মতোই ‘ব্যতীক্রমী‘ ঘটনা এখানেও ঘটবেনা তার নিশ্চয়তা কী?