আমাদের Telegram এ ফলো করুন সবার আগে সর্বশেষ আপডেট পান Click Here

Google News এ ফলো করুন Click Here

দিলীপ ঘোষ মার খাচ্ছেন : মদন গাইছেন গান

Current India Features Politics

প্রচার যতই শেষ লগ্নের দিকে এগোচ্ছে ততই উত্তপ্ত হয়ে উত্তপ্ত হচ্ছে ভবানীপুর। কার্যত দফায় দফায় বাধা পেয়েছে বিজেপি। আগেই প্রবল হেনস্থার শিকার হয়েছেন বিজেপি প্রার্থী প্রিয়াঙ্কা। আজ প্রচারে গিয়ে আক্রান্ত হলেন দিলীপ ঘোষ।
অপরদিকে আজই মদন মিত্রর অফিসপাড়ায় প্রচার করতে গিয়ে টিটকিরি শুনলেন বিজেপি ভোটপ্রার্থীরা, গান! হ্যাঁ সেটা তো আছেই। ‘গানে ভুবন ভরিয়ে দিতে’ মদনের জুড়ি আর কোথায়!

প্রসঙ্গত, ভবানীপুরের যদুবাবুর বাজারে প্রচার করতে গিয়ে স্বাস্থ্যকেন্দ্রের একটি টিকাকরণ ক্যাম্প দেখতে যান দিলীপ ঘোষ। সাথে সাথে ওঠে ‘জয় বাংলা’ শ্লোগান। শুরু হয় ধাক্কাধাক্কি। পাল্টা তরফের ‘জয় শ্রীরাম ‘ শ্লোগানে সেই সময় রাম – বাংলা মিলে মিশে একাকার। মাথা ফেটেছে এক বিজেপি কর্মীর।


প্রতিবাদে সরব হন বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। ‘ভবানীপুরে বার বার বিজেপিকে প্রচারে বাধা দেওয়া থেকেই বোঝা যায়, তৃণমূল ভয় পাচ্ছে’ এমন ইঙ্গিতই করেন।


ওপাড়ায় মদন মিত্রের কানে কথাটা যেতেই তার স্বভাবসিদ্ধ পাল্টা প্রতিক্রিয়া –“চাকরি গেছে দিলীপের। এবার শুভেন্দুর যাবে”।
দিলীপ ঘোষের পদোন্নতি হেলায় উড়িয়ে দিলেন চোখের সানগ্লাসে চোরা হাসি মদনের।

ওদিকে ভবানীপুরের দাঙ্গাবাজির বিরুদ্ধে প্রাক্তন রাজ্যসভাপতির হয়ে মুখ খোলেন রাজ্যসভাপতি সুকান্ত মজুমদার। তিনি বলেন,”ভবানীপুরের পরিস্থিতি ভয়াবহ। পশ্চিমবঙ্গে আর গণতন্ত্র অবশিষ্ট নেই..”
ওদিকে মদন মিত্রর প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়ায় তিনি নিজের অফিসপাড়ায় প্রচারকারীদের দেখিয়ে বলেন,”গণতন্ত্র আছে বলেই এখানে প্রচার করতে পারছে বিরোধীরা”।

শেষলগ্নের প্রচারে বর্ষীয়ান বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষকে ধাক্কা দেওয়া হয়েছে, লাথি মারা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন রাজ্যসভাপতি সুকান্ত মজুমদার।
তৃণমূল নেতা সৌগত রায় অবশ্য সম্পূর্ণটাই জণগণের ক্ষোভ বলে উল্লেখ করেছেন, এবং বিজেপি কর্মীরা পিস্তল উঁচিয়ে শাসিয়েছেন বলেও উল্লেখ করেছে তৃণমূল।
এ প্রসঙ্গে মদন মিত্রর প্রতিক্রিয়া যদিও জানা যায়নি, কারণ ‘আইকোর চিটফান্ড’ মামলায় তখন তিনি সিবিআইয়ের মুখোমুখি, সওয়াল জবাবে ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন।