VoiceBharat News IMG 20211007 114046

তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপত্র ‘জাগো বাংলা’-র উৎসব সংখ্যায় মমতা ব্যানার্জী লিখলেন প্রবন্ধ, শিরোনাম — দিল্লীর ডাক। এই প্রবন্ধকে দিল্লীদখলের প্রাথমিক খসড়া নকশা বললেও ভুল হয়না। ২০২৪ যে এখন বঙ্গনেত্রীর একমাত্র নিশানা তা রাজনৈতিক সচেতন ব্যক্তি মাত্রেই জানেন। আর তার লক্ষ্যেই প্রস্তুত হওয়ার ডাক দিলেন দেশের সব বিরোধী দলকে।

VoiceBharat News images 71


নিজের লেখা এই প্রবন্ধে মমতা ব্যানার্জী  বিজেপি বিরোধী ঐক্যের ওপরেই জোর দিয়েছেন। দলমত নির্বিশেষে গৈরিক শিবিরের বিরুদ্ধে এককাট্টা হতে ডাক দিয়ে বলেছেন,”সময়ের ডাকে সাড়া দিতে হবে। দেশগড়ার দায়িত্ব নিতে হবে। নিজেদের অঙ্কে নয়, দেশের স্বার্থে একজোট হতে হবে”..। বিজেপির বিকল্প শক্তি তৈরির ভিত্তিতেই যে জোট গড়তে চাইছেন তা স্পষ্ট বক্তব্যেই বুঝিয়ে দিয়েছেন মমতা।
এবার রাজ্য ছাপিয়ে ত্রিপুরা, গোয়া, মণিপুরেও সাংগঠনিক দক্ষতা বাড়াচ্ছেন মমতার সৈনিকরা।

এখন রাজনৈতিক মহলের একাংশ প্রশ্ন করছেন কারা কারা থাকবেন সেই জোটে? রাজ্যের সীমানা তো নয়, লক্ষ্য যখন দেশ, প্রথমেই আসে কংগ্রেসের নাম। কিন্তু রাহুল গান্ধীর বর্তমান ভূমিকায়, যেখানে তাঁর নিজের গোষ্ঠীতেই সংশয়, বিজেপির বিরুদ্ধে সংগ্রামে কংগ্রেস যে অগ্রনী হবেনা সেটাই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

VoiceBharat News IMG 20211007 152433


যদিও মমতা ব্যানার্জী আগেও উল্লেখ করেছেন,  এই লেখাতেও বলেছেন, “কংগ্রেসকে বাদ দিয়ে জোট করার কথা আমরা ভাবছিনা”। তবে নেতৃত্বের রাশ যে তৃণমূলের হাতেই থাকবে তাতে সংশয় নেই।

মমতা ব্যানার্জীর জনপ্রিয়তা দেশের বিভিন্ন প্রান্তেই যেভাবে ছড়িয়েছে তাতে সকলেই প্রায় এক বাক্যে মেনে নিচ্ছেন মমতা ব্যানার্জীই এই মূহুর্তে শক্তিশালী  বিজেপি বিরোধী নাম। কংগ্রেস সেটা মানতে যদিও রাজি নয়, লখিমপুরের ঘটনা সংক্রান্ত মতানৈক্যে কংগ্রেসের হয়ে রাহুল গান্ধী সরব হতে, তৃণমূল রাজ্য সম্পাদক কুনাল ঘোষ তাকে চুপ করিয়ে দিয়েছেন, ‘পার্টটাইম রাজনীতিক’ বলেও কটাক্ষ করতে ছাড়েননি।


মমতার পক্ষ সমর্থনে রাজনৈতিক বিশেেষজ্ঞ বিশ্বনাথ চক্রবর্তী বলছেন, “নোটবন্দী থেকে জিএসটি, এমনকি সিএএ, এনআরসি বা কৃষক আন্দোলন– প্রতিটি ইস্যুতেই সবচেয়ে বেশি সোচ্চার হয়েছেন মমতা”।
প্রায় সব বিরোধীদল এমনকি সিপিআইএম পর্যন্ত বিজেপি বিরোধী ঐক্য সমর্থনের ইঙ্গিত দিয়েছে। এখন শুধুমাত্র কংগ্রেসই হয়ে দাঁড়াচ্ছে রাজনীতিকদের মাথাব্যথার কারণ।

কংগ্রেসের পক্ষ থেকে প্রদীপ ভট্টাচার্য বলেছেন, “বিরোধী জোটে কে নেতৃত্ব দেবে এখন সেটা ফয়সালা হওয়ার বিষয়ই নয়। আগে সবার মতৈক্য তৈরি হোক। আজ বললাম কাল জোট তৈরি হয়ে গেল, বিষয়টা এরকম নয়”।
বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু কংগ্রেস নেতার সুরেই সুর মিলিয়ে বলেন,”এরকম চেষ্টা আগেও হয়েছে। কেউ ন’মাস কেউ ছ’মাস দেশের প্রধানমন্ত্রীত্ব করেছেন। তাতে দেশের প্রধানমন্ত্রীর অবস্থা মুদিখানার দোকানির মতো হয়েছিল”।
কংগ্রেস যে জোট তৈরিতে বাধা দিয়ে পরোক্ষে বিজেপির সুবিধা করে দিচ্ছে এই বক্তব্যের সাযুজ্যই তার প্রমাণ। মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com