1633143501_desh3-5

‘দুয়ারে রেশন’ প্রকল্প বন্ধের দাবিতে এবার সুপ্রিমকোর্টে হাজির হলেন রেশন ডিলাররা।
প্রসঙ্গত, উপযুক্ত পরিকাঠামো আর লোকবলের অভাব এই অজুহাতে প্রকল্প বন্ধ করতে চাইলেও হাইকোর্টে রেশন ডিলারদের দাবি নস্যাৎ করে বিচারপতি বলেছিলেন, “দুয়ারে রেশন একটি মহৎ প্রকল্প। পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে এই পরিষেবা ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়া দরকার। আদালত এর মধ্যে অনুচিত কিছু খুঁজে পায়নি”।

তারপরই সর্বোচ্চ আদালতের দ্বারস্থ হলেন ‘অল ইন্ডিয়া ফেয়ার প্রাইস ডিলার ফেডারেশন ‘। তাদের দাবি ‘দুয়ারে রেশন’ প্রকল্প বন্ধ করা হোক। একাধিক কারণ দেখিয়েছেন তারা।


ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বম্ভর বসু এই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে বলেন, “ওই প্রকল্প অনুযায়ী ঘরে ঘরে রেশন পৌঁছে দিতে হলে প্রতিটি রেশন দোকানের মালিককে নিজস্ব গাড়ি কিনতে হবে। সেই গাড়ির ড্রাইভার ও মালবহন করার জন্য আলাদা লোক রাখতে হবে, ব্যাপারটা পুরোটাই রেশন দোকানের মালিকদের খরচসাপেক্ষ। “যেখানে সরকারের দেওয়া অনুদান কুইন্টাল প্রতি পঞ্চাশ পয়সা, সেখানে এত খরচ কুলিয়ে ওঠা ডিলারদের পক্ষে সমস্যাজনক হয়ে দাঁড়াচ্ছে”।


শুধু তাই নয়, রেশন ডিলারদের পক্ষ থেকে বিশ্বম্ভর বসু জানিয়েছেন –করোনা পরিস্থিতিতে বাইরের লোকে ঘরে ঢুকলে সংক্রমণ হতে পারে সেই ভয়ে অনেক উপভোক্তাও নাকি ওভাবে রেশন নিতে চাইছেন না!


বিশ্বম্ভরবাবু একটি বিকল্প পরিষেবার কথাও উল্লেখ করেছেন। পূজো এবং দীপাবলির পর মুগ, মুসুর সহ বিভিন্ন ডাল ও রান্নার জন্য সোয়াবিন তেল কম দামে দেওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছে কৃষিমন্ত্রক। ‘দুয়ারে রেশন’ প্রকল্পের জন্য রাজ্য সরকারের নির্ধারিত ৪৮১.৭৬ কোটি টাকা বাঁচিয়ে বরং কমদামে রেশন দেওয়া হোক — এমনটাই চাইছে রেশন ডিলাররা। তাতে সরকারি অর্থ যেমন সাশ্রয় হবে, উপভোক্তারাও উপকৃত হবেন তেমনই বহু রেশন দোকান বন্ধ হওয়া থেকে রেহেই পাবে বলেই মনে করছেন বিশ্বম্ভর বসু।


হাইকোর্ট রেশন ডিলারদের দাবি উপেক্ষা করে ‘দুয়ারে রেশন’ প্রকল্পকেই মান্যতা দিয়েছে। এখন সুপ্রিম কোর্টের মামলায় নতুন কিছু আবেদন রাখতে চলেছে রেশন ডিলারদের ফেডারেশন সংগঠন। দেখা যাক সুপ্রিম কোর্ট এবার কী রায় দেন!

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com