কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

নিজের সঙ্গে প্রিয়জনের হদয়ের ও গুরুত্ব দিন, ‘বিশ্ব হার্ট ডে’তে

Features Health International

‘যদি হৃদয়ে লেখ নাম সে নাম রয়ে যাবে’

হৃদয়ে যাতে নামটা থাকে তারজন‍্য তো হৃদয়ের যত্ন নেওয়া দরকার। আজ বিশ্ব হৃদয় দিবস।নিজের হৃদয়ের সঙ্গে আপনার প্রিয়জনের হৃদয় ও ভালো রাখুন।

কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304


আমাদের হৃদযন্ত্র আমাদের জন্য সারা দিন,রাত কঠোর পরিশ্রম করে চলে। শরীরের সুস্থতা নির্ভরশীল কিন্তু হৃদযন্ত্রের কাজের উপর।যাতে কোনও বাধা-বিপত্তি ছাড়াই কাজ করতে পারে আমাদের হৃদযন্ত্র তার জন্য  আমাদেরই একে সাহায্য করতে হবে। হৃদযন্ত্রকে সুস্থ রাখাই আমাদের মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত। আমাদের নিজের ও আমাদের প্রিয়জনের স্বাস্থ্য সচেতনতা বাড়াতে এই দিনকে চিহ্নিত করা হয় বিশ্ব হার্ট দিবস হিসাবে।

ওয়ার্ল্ড হার্ট ফেডারেশনের বক্তব্য এই মুহূর্তে দাঁড়িয়ে বিশ্বের সব চেয়ে বড় প্রাণঘাতী রোগ “কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ”,বিশ্বে বড় প্রাণঘাতী রোগ।

বছরে প্রায় ১৮.৬ মিলিয়ান মানুষ প্রাণ হারান এই রোগে।বিশেষ করে করোনাকালে এটি বেশী দেখা গেছে। হৃদযন্ত্র বিকল হওয়ার কিছু কারনের মধ‍্যে ধূমপান বড়ো কারন।

 ধূমপান স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর। হৃদযন্ত্রের জন্য তো বটেই।১৯৬০ সাল থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা ধূমপানকে হৃদরোগের  সবচেয়ে বড়ো কারণ হিসাবে তুলে ধরেছেন।হৃদরোগে মৃত্যুর বড় কারনই হল ধূমপান।

ওয়ার্ল্ড হার্ট ফেডারেশন আজকের  দিনে জনগনের মধ্যে হার্ট সম্বন্ধীয় রোগ সহ কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ, স্ট্রোক ইত্যাদি নিয়ে সচেতনতা নিয়ে  প্রচার করে।প্রত‍্যেকে কিভাবে নিজেদের হার্টের যত্ন নেব ,কী ধরনের ডায়েট ব্যবহার করবে ইত্যাদি নিয়ে আলোচনা হয়।তামাক জাতীয় নেশা সেবনে বিরতি , স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণে হার্টের রোগ প্রায় ৮০% পর্যন্ত কমিয়ে আনা সম্ভব। ২০২১এর থিম ‘ইউজ হার্ট টু কানেক্ট’ ।

এই থিমের মূল উদ্দেশ্য মহামারীর সময় বিভিন্ন আকর্ষণীয় পদ্ধতির মাধ‍্যমে পরিবার বা আমাদের চারপাশের মানুষের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করা।একমাত্র হৃদয়ের সংযোগ পারে সমস্ত দূরত্ব ঘুচিয়ে দিয়ে হৃদয়ের কাছাকাছি আসতে।এই বিশ্ব হৃদয় দিবসে নিজের ও নিজের প্রিয়জনের সঙ্গে অকপটে হৃদয়ের সম্পর্ক গড়ে তোলার অঙ্গীকার নেওয়া যেতে পারে।ভালো, সুস্থ থাকতে মনের বা শরীরের যত্ন নেওয়ার  মত হৃদয়ের ও যত্নের প্রয়োজন হয়।