কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

বিএসএফ-কে ‘খুনী’ ‘ধর্ষক’ বলেছেন অপর্ণা সেন! এই অভিযোগে আইনি নোটিশ ধরালো বিজেপি

Current India Entertainment Features International Politics

সীমান্ত এলাকায় বিএসএফের ক্ষমতা পরিসর বৃদ্ধির প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে অভিনেত্রী পরিচালক অপর্ণা সেন ‘খুনী’ ও ‘ধর্ষক’ শব্দদুটি ব্যবহার করেছেন বলে অভিযোগ। এই মর্মে তাঁকে আইনি নোটিশ পাঠালেন বিজেপি নেতা অনির্বাণ গাঙ্গুলি। জানাচ্ছে সংবাদ। সংস্থা আইএনআই।


প্রেসক্লাবে সোমবারই বিতর্কটি উঠেছিল। সুজাত ভদ্র সহ কয়েকজন মানবাধিকার কর্মীর সামনেই বিএসএফের এক্তিয়ার বাড়ানোর বিরোধিতা করেছিলেন অপর্ণা সেন। তিনি ১৯৪৫ সালের জেনেভা কনভেনশনের তথ্য তুলে ধরে বোঝান আন্তর্জাতিক বর্ডারের স্তম্ভ থেকে ১৫০ গজ দূরে কাঁটাতারের বেড়া থাকার কথা। যেগুলো ইতিমধ্যেই বাড়তে বাড়তে ৬ থেকে ১২ কিলোমিটার পর্যন্ত হয়ে গেছে।

কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

এর ভিত্তিতেই অপর্ণা সেন প্রশ্ন তোলেন, “এক্তিয়ার বাড়লে অনুপ্রবেশ, চোরাচালান কমবে, এমনটা বলা হচ্ছে। কিন্তু কাঁটাতার বর্ডার পিলার থেকে এত দূরে হলে চোরাচালান তো আরও বেড়ে যাবে!”


অপর্ণা সেনের ওই বক্তব্য শুনে বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী কটাক্ষ করে বলেন, “নিশ্চয়ই উনি (অপর্ণা সেন) এখন পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পে রোলে আছেন! তাই প্রেস ক্লাবে গিয়ে বিএসএফ সম্পর্কে বড় বড় কথা বলছেন! যেসব শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে, তা দেশপ্রেমিকরা মেনে নিতে পারবেনা”।


প্রসঙ্গত, সীমান্তে বিএসএফের এক্তিয়ার বাড়ানোর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছে তৃণমূল, কংগ্রেস এবং সিপিআইএম দল। শুধু তাই নয়, এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপত্তি তুলেছেন বিএসএফের প্রাক্তন উচ্চপদস্থ আধিকারিক সমীর মিত্র। তাঁর মতে, “বিএসএফের কাজ সীমান্তের সুরক্ষা নিশ্চিত করা। অপরাধ প্রতিরোধ ও সীমান্তবর্তী এলাকার অধিবাসীদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা”। সমীর মিত্র যুক্তি দিয়ে দেখিয়েছেন, সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়াটাই এক্ষেত্রে প্রাধান্য দেওয়া উচিত ; কিন্তু উপযুক্ত রক্ষণাবেক্ষণ না থাকায় বহু জায়গায় তারের ফেন্সিং নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে বিএসএফের এক্তিয়ার বাড়ানোতেই সমস্যা লাঘব হবেনা বলেই মনে করেছেন তিনি।


সোমবার প্রেসক্লাবে এই প্রসঙ্গটাই উথ্থাপন করেছিলেন চলচ্চিত্র অভিনেত্রী, পরিচালক ও মানবাধিকার কর্মী অপর্ণা সেন। ছিটমহলের দুর্দশার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে তিনি সীমান্তবর্তী এলাকার মানুষদের প্রসঙ্গ টেনে বলেন, “এটা বিশ্বাস করা কঠিন, প্রতিবছর ১৫০ জন বিএসএফের গুলিতে মারা যাচ্ছে, একটারও বিচার হচ্ছেনা। তাই যদি হয় তবে দুপক্ষেরই হতাহতের আশঙ্কা থাকে। এক্ষেত্রে মৃতদের অনেকেরই পিঠে গুলি লেগেছে”। সুতরাং বিনা প্রতিরোধেই কিছু মানুষ মারা পড়ছেন, এমনটাই ইঙ্গিত করতে চেয়েছেন তিনি।


অপর্ণা সেনের এই বিএসএফের এক্তিয়ার বিরোধীতার মন্তব্যে পাল্টা আক্রমণ শানিয়েছিলেন বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খান। যে বক্তব্যের প্রতিবাদে অপর্ণা সেন বিএসএফের ‘জবরদস্তি’-র প্রসঙ্গ উল্লেখ করেছিলেন।

এবার অপর্ণা সেনের বিরুদ্ধে বিএসএফকে ‘খুনী’ ও ‘ধর্ষক’ বলার অভিযোগ তুলে সরাসরি আইনি নোটিশ ধরালেন অনির্বাণ গাঙ্গুলি। যদিও এবিষয়ে অপর্ণা সেনের পাল্টা প্রতিক্রিয়া এখনও জানা যায়নি।