কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

বিধি বাম: সিপিআইএম ভেন্টিলেশনে

Current India Features Politics

উপনির্বাচন, ভবানীপুর, প্রিয়াঙ্কা, মমতা, বিজেপি — এই কয়েকটি শব্দই কয়েকদিন ধরে সোশ্যাল মিডিয়া সহ সর্বত্র ঘোরাফেরা করেছে। তবু কংগ্রেসের সূত্র ধরে সিপিএমের নামটুকু নাম শোনা যাচ্ছিল উপনির্বাচনের আগে পর্যন্ত। সুতো ছিন্ন হওয়ায় একেবারেই তলানিতে ঠেকে গেল সিপিএমের ফুয়েল। ভোটের ফলাফলে বিমান বসুর প্রতিক্রিয়াই বুঝিয়ে দিয়েছে এর থেকে বেশি কিছু তাঁরা আশা করেননি। তবে বাস্তবে যেটুকু খারাপের আশা রেখেছিলেন, ফল তার থেকেও খারাপ হয়েছে। বসুর প্রতিক্রিয়াই বুঝিয়ে দিয়েছে এর থেকে বেশি কিছু তাঁরা আশা করেননি। তবে বাস্তবে যেটুকু খারাপের আশা রেখেছিলেন, ফল তার থেকেও খারাপ হয়েছে।


ভবানীপুরের প্রথম দফার ভোট গণনাতেই সিপিএমের ভবিতব্য একরকম নিশ্চিত হয়ে যায়। তখনই বাম প্রার্থী শ্রীজিব বিশ্বাস ভোট পেয়েছিলেন মাত্র ৮৫।
হওয়া উচিত ছিল ত্রিমুখী লড়াই। বাস্তবে লড়াই হয়েছে দ্বিমুখী। সর্বশেষ ফলাফলে বিজেপি প্রার্থী প্রিয়াঙ্কা টিব্রেয়াল ভোট পেয়েছেন ২৬,৩২০ ভোট, বিজয়ী মমতা ব্যানার্জী ভোট পেয়েছেন ৮৪,৩৮৯, সেখানে বাম প্রার্থী শ্রীজিব বিশ্বাসের ঘরে ভোট পড়েছে ৪,২০১! স্বভাবতই শ্রীজিবের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।
যথারীতি শামসেরগঞ্জ ও জঙ্গীপুরেও তৃণমূল – বিজেপি লড়াইয়ে ব্যাপক সংখ্যক ভোটে জয়ী হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। কোনো কেন্দ্রেই বাম প্রার্থীদের ভোট দশ হাজারও পেরোয়নি।

কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304


কিন্তু বামফ্রন্টের প্রতিক্রিয়া কী?
সোনারপুরে এক দলীয় সভায় বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিমান বসু বলেছেন,” রেজাল্ট যা হওয়ার তাই হয়েছে। এই ভোটে খুব ব্যতিক্রমী কিছু আশা করিনি”।

তবে বেশ কিছু নিয়মিত ভোটারদের ভোট যে তাঁরা পাননি, সে ইঙ্গিতও করেছেন বিমান বসু। তাহলে ভোট সংখ্যা আরও বাড়তো বলেই আশাপ্রকাশ করেছেন তিনি।
তবে জোট ভাঙার ফলে কংগ্রেসের ভোট তৃণমূলে ভাগ হয়ে যাওয়ার যে সুস্পষ্ট ইঙ্গিত দিয়েছিলেন অধীর চৌধুরী, সে প্রসঙ্গে বিমান বসু কোনো মন্তব্য করেননি। আগামী কর্মসূচি সম্পর্কে বলতে গিয়ে বামফ্রন্ট চেয়ারম্যানের উল্লেখ –“আসন্ন উপনির্বাচনে জোট করে নাকি কীভাবে লড়াই করবে দল, সে বিষয়ে মিটিং করে কিছুদিনের মধ্যেই ঘোষণা করা হবে”।


তাহলে দল বাঁচাতে অন্য দলের সাথে জোটই সিপিএমের একমাত্র ভেন্টিলেশন?
প্রশ্ন করছে রাজনৈতিক মহল।