bharti ghosh

কের পর এক ধরা পড়ছে  ভুয়ো পুলিশ,আইপিএস অফিসার সহ আরও গুরুত্বপূর্ণ পেশার সঙ্গে যুক্ত থাকা ভুয়ো ব‍্যক্তিরা। এবার ঝাড়গ্রাম থেকে ধরা পড়ল  প্রাক্তন আইপিএস  অফিসার ভারতী ঘোষের পোষ্যপুত্র পরিচয় দিয়ে এক ব‍্যক্তি।ধৃতের নাম অমিয় কুণ্ডু।বয়স ৩০ বছর।তিনি বাঁকুড়া জেলার রাইপুর থানার বক্সি এলাকার পাটমৌলি গ্রামের বাসিন্দা। ঝাড়গ্রাম শহরের রঘুনাথপুরে ভাড়া থাকত ঐ ব‍্যক্তি।

VoiceBharat News bg

ধৃত অমিয় কুন্ডু র বিরুদ্ধে একাধিক ব্যক্তিকে চাকরি পাইয়ে দেবার নাম করে টাকা তোলার অভিযোগ উঠেছে।    মানসী পৈড়া নামে এক মহিলা শনিবার রাতে ঝাড়গ্রাম থানায় অমিয় কুণ্ডুর বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।মানসী অভিযোগে করেছেন যে  অমিয় নিজেকে আইবি অফিসার পরিচয় দিয়ে, চাকরি পাইয়ে দেওয়ার নাম করে ব্যাঙ্ক মারফত ৭ লাখ ৯২ হাজার টাকা নেয়। মানসী পরববর্তী সময়ে জানতে পারে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার পিড়াকাটার আমজোড় গ্রামের বাসিন্দা সুধীর মাহাতোর কাছ থেকে ১ লাখ ৩২ হাজার টাকা নিয়েছিল অমিয়।একই ভাবে বারংবার এক কায়দাতে লালগড়ের লাঘাটা গ্রামের বাসিন্দা রাজেন্দ্রনাথ দাসের কাছ থেকে ৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা, বাঁকুড়া জেলার সারেঙ্গা থানার চিংড়া গ্রামের ছত্রধর দের থেকে ৪৫ হাজার টাকা ও খাট উপহার নেয় চাকরি করে দেওয়ার নাম করে ।

VoiceBharat News bhrti

একই কায়দাতে টাকা আদায় করত থাকে ধৃত অমিয়। মানসীর অভিযোগে আরও উঠঠে এসেছে প্রাক্তন আইপিএস অফিসার ভারতী ঘোষের পোষ্য পুত্র পরিচয় দিত ধৃত অমিয়। সরকারি দপ্তরে তার নিজের প্রভাব ,ক্ষমতা বলেও সে দাবী করত সকলের কাছে। পুলিশ রবিবার  জামিন অযোগ্য ধারায়ধৃত অমিয়ের বিরুদ্ধে ৪০৬, ৪১৯, ৪২০ নম্বর মামলা দায়ের করেছে। রবিবার ঝাড়গ্রামের ভারপ্রাপ্ত সিজেএম বিচারক স্মরজিৎ রায়ের এজলাসে তোলা হয়েছিল। পুলিশ ঘটনার তদন্তের প্রয়োজনে ১০ দিনের জন‍্য পুলিশ  হেফাজতে রাখার আদালতে আবেদন করে। ২০১৪-২০১৫ সাল থেকে ভুয়ো আইবি পরিচয়পত্র ও নীলবাতি গাড়ির সামনে নিজের ছবি দেখিয়ে কখনও জুনিয়র কনস্টেবল কখনও আবার আইসিডিএ বা স্কুলে চাকরি দেবার নাম করে টাকা তুলত অমিয়।

প্রতারিতরা শনিবার ঝাড়গ্রাম থানায় অভিযোগ করার পর পুলিশ অমিয়কে ঝাড়গ্রাম শহরের রঘুনাথপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করে। এই ধরনের প্রতারণা দিনে দিনে বেড়ে চলেছে। এই প্রতারণা অটকানোর জন‍্য সাধারণ জনগনকে সর্তক থাকতে হবে।দোষীদের শাস্তির ব‍্যবস্থাও করতে হবে।