কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

ভারত বন্ধে কৃষক দের অবরোধে ব্যাপক যানজট দিল্লি সীমান্তে , বাতিল ট্রেন

Current India Features Politics

রবিবার হরিয়ানা পুলিশ সতর্ক করেছিল, সোমবার কৃষক রা কয়েকটি হাইওয়ে অবরোধ করতে পারে । তাই যানজটের জন্য প্রস্তুত থাকুন। এদিন সকালে দেখা যায় , দিল্লি সীমান্তে গুরগাঁও ও নয়ডাতে ব্যাপক যানজট দেখা গেছে । পুলিশ ও আধা সেনা জওয়ানরা এই অবস্থায় প্রতিটি গাড়ি পরীক্ষা করে দেখছেন।

ভারত বন্‌ধের জেরে কয়েকটি ট্রেন বাতিল করা হয়েছে। সোমবার ভোরে জানা যায়, হরিয়ানা ও পাঞ্জাবে কয়েকটি হাইওয়ে অবরোধ করেছে কৃষকরা । কিন্তু কৃষক নেতা রাকেশ টিকায়েত দাবি করেন, তাঁরা কোনো রাস্তা বন্ধ করেননি। অ্যাম্বুলেন্স ও জরুরি পরিষেবার সকলকে যাতায়াত করতে দেওয়া হচ্ছে। রাকেশ টিকায়েতের কথায়, ‘আমরা কিছু বন্ধ করিনি। আমরা কেবল একটি বার্তা দিতে চাইছি ।’ দোকানদারদের উদ্দেশে তিনি বলেন , দোকান বন্ধ রাখুন। বিকাল চারটে পর্যন্ত দোকান খুলবেন না। ৪০ টির বেশি সংগঠনকে নিয়ে গঠিত এই সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা এদিন ভোর থেকে দিল্লি-মিরাট এক্সপ্রসওয়ে অবরোধ করে । গাজিপুরে অবরোধের জন্য উত্তরপ্রদেশ থেকে দিল্লিগামী কোনো যান চলতে পারেনি। কৃষক সংগঠনগুলি জানিয়েছে, ১২ ঘণ্টার এই বন্‌ধে দেশ জুড়ে সব সরকারি ও বেসরকারি অফিস, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, কারখানা বন্ধ থাকবে। একসঙ্গে বলা হয়েছে, বিক্ষোভ শান্তিপূর্ণ হবে ।

কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

এদিন ভোরে কৃষকরা হরিয়ানার কাছে শম্ভু সীমান্ত অবরোধ করেন। পাঞ্জাবে প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি নভজ্যোত্‍ সিং সিধু বলেন , বন্‌ধকে সমর্থন করুন। টুইট করে তিনি জানান , ‘প্রদেশ কংগ্রেস দৃঢ়ভাবে কৃষক ইউনিয়নগুলির ভারত বন্‌ধের পক্ষে রয়েছে ।’ উত্তরপ্রদেশে বহুজন সমাজ পার্টির প্রধান মায়াবতী বলেছেন, তাঁর দল শান্তিপূর্ণ ভাবে ভারত বন্‌ধ সমর্থন করবে। তাঁর কথায়, ‘আমাদের দেশের কৃষকরা তিনটি কৃষি আইনের বিরুদ্ধে । তাঁরা গত ১০ মাস ধরে বিক্ষোভ দেখান ।’ কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক কে সি বেণুগোপাল বলেছেন, ‘কালা কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আমরা কৃষকদের পাশে আছি।’ রাকেশ টিকায়েত বলরন, ‘কৃষকরা প্রয়োজনে ১০ বছর ধরে আন্দোলন করবে কিন্তু সরকারকে আমাদের কথা শুনতেই হবে।’

সূত্রের খবর , দিল্লিতে পুলিশের টহলদারি বাড়ানো হয়েছে। পুলিশের এক কর্তা জানিয়েছেন, দিল্লিতে আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে। দিল্লি সীমান্তে তিনটি বিক্ষোভস্থল থেকে আপাতত আন্দোলনকারী শহরে ঢুকতে পারবেন না।