কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

ভোটের আগেই হেরে বসলেন বামপ্রার্থী: কী বললেন তিনি

Current India Features Politics

গোসাবার বামপ্রার্থী মনোনীত হয়েছেন আরএসপি নেতা অনিলচন্দ্র মন্ডল। কিন্তু এটা কি হল! আগেই হাত তুলে হার স্বীকার করে বসলেন তিনি? সেটাও আবার মনোনয়ন পত্র জমা দিতে গিয়েই!

বাংলায় এখন বামেদের বিধি বাম সেটা জনগণমাত্রেই জানেন। কিন্তু এতটাও খারাপ দশা যে, রাজনৈতিক দৃঢ়তা হারিয়ে আগেভাগেই হাত তুলে স্যারেন্ডার করে ফেলতে হবে? এটা রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরাও ভাবতে পারছেননা।

কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304


আগামী ৩০ অক্টোবর বাংলায় চার কেন্দ্রে উপনির্বাচন ঘোষিত হয়েছে। তার মধ্যে একটি কেন্দ্র দক্ষিণ চব্বিশ পরগণার গোসাবা। এখানে বামেদের হয়ে প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন আরএসপি দলের অনিলচন্দ্র মন্ডল। গত মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র পেশ করতে গিয়েই তিনি হতাশ মন্তব্য করে ফেলেন, যাতে এটাই মনে হয় তিনি হেরে বসে আছেন। এমন প্রার্থীকে আদৌ ভরসা করে কি ভোট দেবেন কেউ? প্রশ্নটা স্বাভাবিক ভাবেই উঠতে পারে। যদিও বামপ্রার্থী অনিলচন্দ্র মন্ডল বলেছেন তাঁর কথার ভুল ব্যাখ্যা করা হচ্ছে। তিনি আসলে এমনভাবে বলতে চাননি।


মনোনয়নপত্র জমা দিতে গিয়ে তিনি বলে বসেন,”যেহেতু বাংলায় সবাই তৃণমূল, সেখানে গোসাবার মানুষজন আরএসপিকে ভোট দেবেন এটা কাম্য নয়, এটা আশা করা যায়না”।
বামপ্রার্থী বলছেন, তিনি এটুকুই বলেছেন তার বেশি কিছু নয়। কিন্তু যেটুকু তিনি বলেছেন তাতে প্রার্থীর আত্মবিশ্বাস যে তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে সেটাই মনে হওয়া কি স্বাভাবিক নয়?
অনিলচন্দ্র মন্ডলের প্রকাশ্য মন্তব্যে বামশিবির চরম অস্বস্তির মুখে।


প্রসঙ্গত, ১৯৬৯ সাল থেকে টানা ৪২ বছর গোসাবা অঞ্চল আরএসপির দখলেই ছিল। গত দশ বছরে তাঁদের আধিপত্য কমে এসেছে। বিধানসভা নির্বাচনেও আরএসপি প্রার্থী মাত্র ২.৪৯ শতাংশ ভোট পেয়েছিলেন। আর ৩০ সেপ্টেম্বর ভবানীপুর ও বাকি দুই কেন্দ্রে বামেদের যে ফলাফল চোখে পড়েছে তাতে এই পরিস্থিতিতে আত্মবিশ্বাস বজায় রাখাই কঠিন। অনিলচন্দ্র মন্ডল চাপতে না পেরে সেকথাই প্রকাশ্যে বলে ফেলেছেন। এমনটাই মনে করছে তৃণমূল শিবির।


অনিলবাবু যতটা গলা নামিয়ে বলেছেন ততটাই গলা চড়িয়ে গোসাবার তৃণমূল প্রার্থী আগাম ঘোষণা করেছেন, “উনি যা ভোট পেয়েছিলেন এবার তার থেকেও কম ভোট পাবেন। তৃণমূল ৭০ হাজার ভোটে জিতবে”।
৩০ অক্টোবর গোসাবায় তাহলে দ্বিমুখী লড়াই হচ্ছে, আর বামেরা দর্শক! জনসাধারণ কি সেটাই ধরে নেবেন?