কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

মমতার বিরুদ্ধে প্রার্থী দিতে নারাজ কংগ্রেস :সিপিএমের সাথে জোট কি তবে ভাঙার মুখে

Current India Features Politics

বাম-কংগ্রেস জোটের ভাঙনের সূচনা কি তাহলে হয়ে গেল। আসন্ন উপনির্বাচনে ভবানীপুরকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার মিলল তারই ইঙ্গিত।


মমতার বিরুদ্ধে প্রার্থী দিচ্ছেনা কংগ্রেস। এদিন স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী।
গতমাস পর্যন্ত উল্টো সুরই ছিল কংগ্রেস রাজ্য নেতৃত্বের। ভবানীপুরে কংগ্রেস প্রার্থী দিতে চায় এমনটাই জানিয়েছিলেন তারা। যদিও অধীর চৌধুরী ব্যক্তিগতভাবে বলেছিলেন, “বিধানসভায় তৃণমূল কংগ্রেসের বিপুল জয়ের পর আবার যিনি মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন, তাঁর বিরুদ্ধে উপনির্বাচনে প্রার্থী দেওয়া ঠিক হবেনা “।

কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304


কংগ্রেসের জাতীয় স্তরের নেতৃত্ব অনেকটা যেন সেই সুরেই সুর মেলালো। কংগ্রেস সূত্রের খবর অনুযায়ী মমতা ব্যানার্জীর বিরুদ্ধে প্রার্থী না দেওয়ার এই সিদ্ধান্তে দলনেত্রী সোনিয়া গান্ধীর প্রভাব রয়েছে।


অপরদিকে ভবানীপুরে তাদের পূর্বসিদ্ধান্ত মতোই প্রার্থী দিয়েছে সিপিএম। কিন্তু ভবানীপুর কেন্দ্রে বাম-কং জনমোর্চার ভূমিকা তাহলে কী হবে?
বহরমপুরের এক সাংবাদিক সম্মেলনে এ সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে অধীর চৌধুরী জাতীয় নেতৃত্বের এই সিদ্ধান্ত জানিয়ে বেশ চড়া সুরেই বলেন,”হাইকমান্ড যখন বলেছেন ভবানীপুরে প্রার্থী দেবেননা, তার মানে আমরাও প্রচার করবোনা । কংগ্রেস সমর্থক রা যাকে খুশি ভোট দেবেন। তবে জাতীয় নেতৃত্ব যখন মমতার বিরুদ্ধে প্রার্থী দিতে চাননি, তখন দিল্লী কী বার্তা দিতে চেয়েছে তা কংগ্রেস কর্মীদের বোঝা উচিত “।


তার মানে কংগ্রেসের সব ভোট মমতা ব্যানার্জীর পক্ষেই যাবে, এমন ইঙ্গিতই কি করলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি?
আর এখানেই বাম-কংগ্রেস জোটে চিড় ধরার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে। যদিও বাম নেতৃত্ব এখনই কোনো প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করছেনা। তবে সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী মনে করিয়ে দিয়েছেন, বিধান সভায় ভবানীপুরের আসন কংগ্রেসের ছিল, এবং সেসময় তাঁরা একসাথেই রাজনৈতিক দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

কংগ্রেসের সিদ্ধান্ত কংগ্রেসের , তাদের কিছু বলার নেই এমন মনোভাব প্রকাশ করে আপাতত সিপিএম ব্যাপারটা এড়িয়ে গেলেও , আষাঢ়ে মেঘ যে ঘনিয়েছে তাতে সন্দেহ নেই।