fotojet_-_2021-01-12t130639.754-sixteen_nine

লড়াইয়ের জন্য কোমর বাঁধতে তৈরি হচ্ছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। একরকম জানিয়েই দিয়েছিলেন — দল বললে তিনি আবারও প্রার্থী হতে রাজি।

“বাঘ বাঘের মাংস খায়না ” প্রবাদটা কারো কারো মনে আসতে পারে, বিশেষ করে বিধানসভা নির্বাচন পর্বের পর। মনে হতেই পারে ওই প্রবাদ কি তাহলে মিথ্যে হয়ে গেল? তাদেরই আশ্বস্ত করার জন্য বলা — এ প্রবাদ মমতা-শুভেন্দু লড়াইয়ে খাটেনা। শুভেন্দু তো আর বাঘ নন!
মানে, শুভেন্দু সেই পুরোনো শুভেন্দু নন আরকি।


তাই বাঘিনীর মাটি নন্দীগ্রামে একটা আঁচড় বসাবার পর আবারও লড়বার ইচ্ছা জাগতেই পারে। কিন্তু তাঁর সে ইচ্ছায় আপাতত জল ঢেলে দিলেন দিলীপ ঘোষ।
উপনির্বাচনে মমতা ব্যানার্জী প্রার্থী ঘোষিত হবার পর থেকে জল্পনার অন্ত ছিলনা। কে হবে মমতার বিরুদ্ধে বিজেপি প্রার্থী?

এই নিয়ে ভোটপাড়া শুরু থেকেই ছিল সরগরম। একবার দিলীপ ঘোষের নাম ওঠে তো একবার দিলীপ বাবুর নাম। কেউ কেউ তো মোদীজির নাম করেও ট্রোলড হয়েছেন। এই চক্করে আইনি পরামর্শের কথাও তুলেছে বিজেপি। কোভিড পরিস্থিতি, রাতে কারফিউ, লকডাউন ইত্যাদি কারণ নিয়ে কার্যত উপনির্বাচন না হতে দেওয়াই যে উদ্দেশ্য তাঁদের এটা একদিক থেকে পরিস্কার ছিল। এই সময়েই মধ্যমঞ্চে হঠাৎ লাফ দিয়ে পড়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারী।


কিন্তু না। সোনার দুধের অন্যতম আবিষ্কারক দিলীপ ঘোষ মহাশয় এবার তাঁর নিজস্ব ভঙ্গিতেই সাফ জানিয়ে দিলেন, ” শুভেন্দু তো একবার হারিয়েছে, কতবার হারাবে? এবার অন্যকেউ হারাক”।

উরিব্বাস! মাঠে না নামতেই হারাবার ঘোষণা। তৃণমূল কংগ্রেস এটাকে যতবড় ঔদ্ধত্যই ভাবুক না কেন। পশ্চিমবঙ্গের মানুষ একাধিক পূর্ব অভিজ্ঞতা থেকে জানে দিলীপবাবুর সব ব্যাপারেই কনফিডেন্স একটু বেশি। তাই এমন চটকা মন্তব্য একেবারে অপ্রত্যাশিত নয়। উনি এমন বলতেই পারেন।

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com