কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

মাকে খুন করে মাটিতে পুঁতে রেখেছিল ছেলে : বৌমাই ফাঁস করল রহস্য

Current India Features

মাকে খুন করে সেই দেহ ঘরের মাটিতে পুঁতে সেই ঘরেই দিনের পর দিন বসবাস! এটা কীকরে সম্ভব? 
ঠিকই, এই অমানবিক কাজটিই করেছে বর্ধমানের সুকরানা বিবির ছোট ছেলে  নয়ন আলি।
ঘটনাস্থল বর্ধমানের হটুদেওয়ান পীরতলা ক্যানেল পার। এখানেই মাকে সঙ্গে নিয়ে থাকতো সেখ সইদুল ওরফে নয়ন। মায়ের সাথে ঝগড়া ঝাটি লেগেই থাকতো ছেলের।

প্রতিবেশিরা জানান, নয়নের মা সুকরানা বিবি ঘুরতে ভালোবাসতেন। ছেলের সেটা অপছন্দ ছিল। এটাকেই ছুতো করে রোজ অশান্তি করত ছেলে।
২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে একদিন হঠাৎ নিখোঁজ হয়ে যান নয়নের মা সুকরানা বিবি। প্রতিবেশিরা হয়তো ভেবেছিলেন কোথাও ঘুরতে গেছেন, তাই আমল দেননি।
সুকরানা বিবি ফিরে না আসায় তাঁর বড় ছেলে কিসমত আলি থানায় নিখোঁজ ডায়েরিও করায়। সবাই একরকম ধরেই নিয়েছিল ঘুরতে গিয়ে সুকরানা বিবি আর ফেরেননি। কিন্তু পেছনে যে এত বড় নৃশংসতা লুকিয়ে তা কেউ আন্দাজই করতে পারেননি।

কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

এর ঠিক ছয় মাস পর নয়নের বিয়ে হয়। মায়ের সঙ্গে যেমন করত, তেমনই পাশবিক আচরণ শুরু করে বৌয়ের সাথে। ঝগড়াঝাটি, গালিগালাজ,  কথায় কথায় মারধোর। আর এই মারধোরের সময়েই নয়নের মুখ ফসকে আসল সত্যটা বেরিয়ে আসে। নয়নের স্ত্রী জানিয়েছেন ঝগড়ার মূহুর্তে বেরিয়ে আসা নয়নের জবানি,”মাকে যেমন খুন করে মাটিতে পুঁতে রেখেছি, তোকেও তেমনি খুন করে গায়েব করে দেবো”।

আর দেরি করেনি নয়নের বৌ। প্রাণভয়ে সে বাপের বাড়ি এরুয়ারে পালিয়ে চলে যায়। ভাইয়ের সাথে ভাইবৌয়ের বিবাদ মেটানোর জন্যেই বড় দাদা কিসমত আলি এরুয়ারে নয়নের শ্বশুরবাড়ি যান। সেখানই সব ঘটনা তাকে খুলে বলেন নয়নের বউ। তারপরই ফিরে এসে পাড়াপ্রতিবেশিদের ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হয়। সত্যিই সে মাকে পুঁতে রেখেছে নিজেরই ঘরের মেঝেতে?
অত লোকের জেরার মুখে পড়ে দেয়ালে পিঠ ঠেকে যায় নয়ন আলির। শেষমেশ স্বীকার করতে বাধ্য হয় — সেটাই সত্যি।
ঝগড়ার মূহুর্তে মায়ের মাথায় বারি মেরে তারপর শ্বাসরোধ করে খুন করে। সবার অজান্তে নিজের ঘরেরই মাটির মেঝে খুঁড়ে সেখানেই মায়ের দেহ পুঁতে দেয়।

নয়নের দেখানো জায়গা খনন করে কঙ্কালের হাড়গোড় পেয়েছে পুুলিশ।  বিগত তিন বছর ধরে এই ঘরেই বাস করছে নয়ন! প্রতিবেশিদের মতে নয়ন এই ঘরের মেঝেতেই নিয়মিত ধূপকাঠিও জ্বালাতো। এমন নৃশংসতা  কোনো অপ্রকৃতিস্থ মানুষের পক্ষেও কি সম্ভব? ভেবে শিউরে উঠছেন স্থানীয় মানুষ।