আমাদের Telegram এ ফলো করুন সবার আগে সর্বশেষ আপডেট পান Click Here

Google News এ ফলো করুন Click Here

মোদী ও মমতা চুপ : পরস্পরকে তোপ দেগে চলেছে দুই দল

Current India Features International Politics

গত বুধবার বালুরঘাট থেকে ফিরেই মমতার বিরুদ্ধে তোপ ঝাড়লেন সুকান্ত মজুমদার। বালুরঘাটের সাংসদ ও বিজেপির নব্য রাজ্য সভাপতি সুকান্ত বাংলাদেশের সাম্প্রতিক ঘটনায় এই প্রথম নিজের বক্তব্য পেশ করলেন। শুরুতেই মমতার প্রতি অভিযোগ, “এত বড় ঘটনায় তৃণমূল কংগ্রেস এবং মুখ্যমন্ত্রীর তরফে কোনো বার্তা দেওয়া হয়নি। যে ধরনের বার্তা আসা উচিত ছিল, এখনও পর্যন্ত সেধরনের বার্তা কেন এলনা?”


সুকান্ত জোর গলায় মুখ্যমন্ত্রীর দিকে অভিযোগ ছোঁড়ার আগেই অবশ্য বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী মমতাকে কটাক্ষ করেছিলেন –“দুধেল গাইয়ের বিরুদ্ধে বললে ভোট হাতছাড়া হয়ে যাবে, ভোটব্যাঙ্ক বাঁচাতেই মুখ্যমন্ত্রী কিছু বলছেন না”। আজ সেই কথাতেই সুর মেলালেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি।


অন্যদিকে তৃণমূলের পাল্টা অভিযোগ, “নরেন্দ্র মোদী চুপ কেন?” দলীয় মুখপত্র জাগো বাংলায় লেখা হয়েছে, “ভোটের আগে যেখানে গিয়ে প্রচার সারলেন, এখন সেই বাংলাদেশ নিয়ে নীরব কেন নরেন্দ্র মোদী?”


বিজেপির পক্ষ থেকে সুকান্ত মজুমদার অবশ্য সাফাই দিয়েছেন “প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সাথে কী কথা বলেছে না বলেছে তা আপনারা ভবিষ্যতে জানতে পারবেন”।


ভবিষ্যতে কে কী বলবেন সেটা ভবিষ্যতেই নির্ধারিত হবে। আপাতত বর্তমানে বিজেপি – তৃণমূল দুই দলই মুখ্যমন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রীর নীরবতা নিয়ে একে অপরের সাথে কাজিয়া চালিয়ে যাচ্ছেন।
গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে সুকান্ত মজুমদার বলেছেন, “বাংলাদেশের ঘটনায় যে উত্তরগুলো পাওয়া যাচ্ছে তা পশ্চিমবঙ্গের ভবিষ্যতের জন্য অত্যন্ত চিন্তার বিষয়”।


প্রসঙ্গত বাংলাদেশ সরকার কী বলছেন তা একনজরে দেখে নেওয়া যাক।


দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পরিস্থিতিতে মৌলবাদী হামলা দমনের জন্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে কড়া নির্দেশ দিয়েছেন। মঙ্গলবার বাংলাদেশ সচিবালয়ে এক জরুরি বৈঠকে হিংসা বিরোধী আলোচনাই মুখ্য হয়ে ওঠে। বৈঠক সারা হলে ক্যাবিনেট সচিব জানিয়েছেন, ” অপরাধীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী “।


এদিন ঢাকায় এক ভার্চুয়াল ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বার্তা পাঠান, “বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক চেতনার দেশ। এখানে সব ধর্মের মানুষ তাঁদের ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করবেন। আমাদের সংবিধানেও সেকথা বলা আছে। ইসলাম ধর্মও সেই কথাই বলে”। একথা পরিস্কার ভাবে ঘোষণা করে শেখ হাসিনা তাঁর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতিচারণাও করেন।


বাংলার মুখ্যমন্ত্রী ও ভারতের প্রধানমন্ত্রীর নিশ্চয়ই এটা অজানা নয়। দলীয় নেতারা জানেন কি?