আমাদের Telegram এ ফলো করুন সবার আগে সর্বশেষ আপডেট পান Click Here

Google News এ ফলো করুন Click Here

সন্ত্রাসবাদীদের সেফ হোম কলকাতা : বললেন সুকান্ত মজুমদার

Current India Features Politics

দিল্লী কোর্টে গুলিচালনার প্রসঙ্গে ফিরহাদ হাকিম আইন শৃঙ্খলার ব্যর্থতা নিয়ে অমিত শাহকে কটাক্ষ করেছিলেন। তার পাল্টা জবাব দিয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতি কলকাতায় সন্ত্রাসীদের অবস্থান নিয়ে দুচার কথা শুনিয়ে দিলেন।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার দিল্লীর রোহিনী কোর্টে সন্ত্রাসবাদীরের সাথে পুলিশের সরাসরি সংঘর্ষ হয়। ৩০ থেকে ৪০ রাউন্ড গুলি চলে প্রকাশ্য আদালতেই । যার ফলে তিন কুখ্যাত সন্ত্রাসবাদী নিহত এবং একজন আইনজীবী আহত হন।
ভরা কোর্ট সভায় ওই গুলিবর্ষণ নিয়েই ফিরহাদ হাকিম মন্তব্য করেছিলেন, “এমন ঘটনা সিনেমায় দেখা যায়। কিন্তু বাস্তবে অমিত শাহের পুলিশ ব্যর্থ”।

আসলে প্রশ্নটা সন্ত্রাসবাদ দমনে পুলিশের গুলি চালানো নিয়ে নয়, প্রকাশ্য আদালতে এমন ঘটনা ঘটল কীকরে? প্রশ্ন সেটাই।
শুক্রবার দিল্লীর রোহিনী কোর্টে ২০৬ নম্বর ঘরে কুখ্যাত আসামী জিতেন্দ্র ওরফে গোগি -র বিচারসভা চলাকালীন রাইভাল গ্যাংএর কয়েকজন দুষ্কৃতী গোগিকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। দুষ্কৃতীরা আইনজীবির পোশাক পরেই কোর্টরুমে ঢুকে পড়েছিল। হঠাৎ ওই গুলিবর্ষণে গোগির তৎক্ষণাৎ মৃত্যু হয়। দিল্লী পুলিশও পাল্টা গুলি ছুঁড়ে তিন দুষ্কৃতীকে খতম করে। এলোপাথারি চলা গুলিতে একজন আইনজীবি আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই দিল্লীর বিশৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন করেছিলেন ফিরহাদ হাকিম – “যদি বিচারকের গায়ে গুলি লাগতো?” এছাড়াও উত্তরপ্রদেশ ও অসমের পরিস্থিতি নিয়েও আইন শৃঙ্খলার ব্যর্থতার ইঙ্গিত করেন তিনি।

ফিরহাদ হাকিমের মন্তব্যের জবাবে সুকান্ত মজুমদার সরাসরি কলকাতার দিকে দৃষ্টি ফেরাতে চাইলেন।


“বাংলা ভারতবর্ষের জন্য বিপদের কারণ হয়ে উঠছে… দিল্লী , উত্তরপ্রদেশ নিয়ে পরে ভাবলেও চলবে”।
এই পাল্টা মন্তব্যের কারণও যুক্তি দিয়ে বোঝাতে চেয়েছেন সুকান্ত মজুমদার। স্পষ্টতই বলেছেন,”গোটা দেশের বিভিন্ন সন্ত্রাসবাদী সংগঠনের লোকজন এই কলকাতায় এসে লুকিয়ে থাকছে। কলকাতাই তাদের সেফ হোম। সন্ত্রাসবাদীরা যে এলাকায় লুকিয়ে থাকে সে এলাকায় কখনো সন্ত্রাস ঘটায়না”।


যুক্তি দিয়ে এমন দাবিই করেছেন সুকান্ত মজুমদার।
তবে এই বক্তব্যের সপক্ষে কোনো প্রমাণ তিনি পেয়েছেন কি! পেয়ে থাকলে কী পদক্ষেপ নেওয়ার কথা ভাবছেন ? এই প্রশ্নের উত্তর বিজেপির রাজ্য সভাপতিই দিতে পারেন।