IMG_20211229_120522

সম্প্রতি গঙ্গাসাগর মেলার প্রস্তুতিপর্বের তত্ত্বাবধান করতে মমতা বন্দ্যাপাধ্যায় মঙ্গলবারই সেখানে উপস্থিত হয়েছেন। সমস্ত ব্যবস্থা খুৃঁটিয়ে দেখে তিনি কপিল মুনির আশ্রমে বক্তব্য রাখেন। কথাপ্রসঙ্গে তুলেছিলেন কেন্দ্রীয় সরকারের বঞ্চনা ও একচোখা মনোভাবের অভিযোগ।

কুম্ভমেলার সাথে তুলনা করে তিনি বলেছিলেন, “কুম্ভমেলায় সব খরচ যোগায় কেন্দ্র, অথচ গঙ্গাসাগরে এক পয়সাও দেয়না।” প্রশ্ন তুলেছিলেন,”কুম্ভমেলা যদি সুয়োরানী হয়, গঙ্গাসাগর কি তবে দুয়োরানী?” আসলে তুলনাটা এক রানীর প্রতি অতি মনোযোগ বোঝাতে ব্যবহৃত একটি প্রবচন। তবে এই প্রবচন যে প্রকৃতই বিজেপির আঁতে লেগেছে, বিজেপি নেতার সাতসকালে ট্যুইটে ক্ষোভ উদগীরণই তার প্রমাণ।


তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই মন্তব্যের প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে বিজেপির ট্যুইট মাস্টার নেতা তথাগত রায় রাজ্যসরকারকে সরাসরি আক্রমণ না করে প্রেস মিডিয়াকে আক্রমণ করে বসলেন। বহুল প্রচারিত একটি সংবাদ মাধ্যমকে উদ্দেশ্য করে ট্যুইটে তথাগত লিখেছেন,“গঙ্গাসাগর কি দুয়োরানি, কেন্দ্রকে খোঁচা মমতার’- আবাপ। নিজেরা রাজ্যের সর্বনাশ করে ‘কেন্দ্রের বঞ্চনা’-র হাপু গেয়ে চৌত্রিশ বছর কাটিয়ে দিল সিপিএম। চপশিল্প আর ভিক্ষার রাজনীতির নেত্রী, সিপিএমের মেধাবী ছাত্রী সেই পথ ধরবেন আর আনন্দবাজার তার ডুগডুগি বাজাবে, এ আর বিচিত্র কী?”


তথাগত রায়ের এই ট্যুইটবার্তা কাদের উদ্দেশ্যে, সেটা ঠিক স্পষ্ট নয়। রাজ্যসরকারি শিল্প! রাজ্যসরকারের জনহিতকর প্রকল্প! সিপিএমের ৩৪ বছরের রাজত্ব! নাকি চারপাশের ছবি তুলে ধরে যারা – সেই প্রেস মিডিয়া!
আক্রমণ কাদের উদ্দেশ্যে?

উল্লেখ্য, বিজেপি সদস্য এই প্রাজ্ঞ নেতাকে গেরুয়া শিবিরের অন্য নেতারাও বিশেষ পাত্তা দেননা বলেই জানা যায়। তাহলে এত প্রগল্‌ভতা কেন? সেই প্রশ্নই অনেকে করছেন। তবে বিজেপি দলের মধ্যে, যেকোনও ইস্যুতে কথা বলতে ঝাঁপিয়ে পড়ার মতো ওই একজনই আছেন, সেটাও অনেকে স্বীকার করছেন। কাজেই তথাগতর এই ভাষা যে বিজেপিরই মার্জিত ভাষ্য , তাতে সন্দেহ নেই।

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com