কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

১৪৪ ধারা অমান্য করেই ত্রিপুরায় সমাবেশ করল বিজেপি সরকার

Current India Features Politics

ত্রিপুরায় অভিষেক ব্যানার্জী মিছিল করার অনুমতি পাননি। তৃণমূল সহ অন্যান্য সব বিরোধী দলের ক্ষেত্রেই সভা সমাবেশ নিষিদ্ধ। অথচ ১৪৪ ধারা জারি করিয়ে নিজেরাই সে বিধি ভেঙে সমাবেশ করল ত্রিপুরার বিজেপি সরকার।

গত ২১ সেপ্টেম্বর ত্রিপুরায় একটি মিছিলের জন্য আবেদন করেছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক ব্যানার্জী। কিন্তু সরকারি হস্তক্ষেপে সে মিছিল বাতিল করা হয়।
সরকার পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল করোনা এবং দুর্গাপূজাকে সামনে রেখে তারা নোটিশ জারি করেছে ২০ সেপ্টেম্বর থেকে ৪ঠা জুন পর্যন্ত সমস্ত মিটিং সমাবেশ ও জমায়েত নিষিদ্ধ। সরকারি নির্দেশিকা মেনে আদালতও সেই মর্মেই তৃণমূলের মিছিল বাতিল করার পক্ষেই রায় দিয়েছিল। অথচ সেই রায়ের বিপক্ষে গিয়ে একাধিকবার নিজেই ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করলেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। করার পক্ষেই রায় দিয়েছিল। অথচ সেই রায়ের বিপক্ষে গিয়ে একাধিকবার নিজেই ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করলেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব।

কম মুল্যে আপনার পন্যের বিজ্ঞাপন দিন অথবা খবরের মাধ্যমে প্রচার করুন আপনার ব্যাবসা, বিস্তারিত জানতে WhtasApp / Call 8585047304

২১ সেপ্টেম্বর, অর্থাৎ নিষেধাজ্ঞা জারির পরদিনই গোমতি জেলার উদয়পুরের একটি রাজনৈতিক সভায় বিপ্লব দেব বক্তৃতা দিয়েছেন এমনটাই তৃণমূলের দাবি।
এছাড়াও ২৩ তারিখ ত্রিপুরার রবীন্দ্র শতবার্ষিকী হলে ‘আয়ুস্মান ভারত’ এর একটি অনুষ্ঠানে এবং আগরতলার একটি অডিটোরিয়ামের অনুষ্ঠানেও অংশ নিয়েছিলেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী। অনুষ্ঠানের ছবি ও ভিডিও ফুটেজ দেখে তৃণমূল কংগ্রেস দাবি করে বলছে ওইসব অনুষ্ঠানে অন্ততপক্ষে ৫০০ বা তার বেশি লোকের জমায়েত হয়েছিল। শুধু বিপ্লব দেব নন, বিজেপির আরও অনেক শীর্ষ নেতাদেরও সেইসব অনুষ্ঠানে যোগ দিতে দেখা গেছে।

১৪৪ ধারা অনুযায়ী যেখানে পাঁচ জনের বেশি লোক জমা হওয়াই নিষিদ্ধ, সেখানে সরকার পক্ষের নেতা মন্ত্রীরা ওই অনুষ্ঠানগুলো করলেন কীকরে?
এই ১৪৪ ধারা তবে কি শুধুই বিরোধী দলের জন্য? প্রশ্ন তুলেছে তৃণমূল কংগ্রেস।


এই অভিযোগকে ভিত্তি করেই ত্রিপুরার মুখ্যসচিব অলোক কুমারকে চিঠি পাঠালো তৃণমূল কংগ্রেস। আদালতের রায়ে সরকারি নিষেধাজ্ঞা সরকার নিজেই কীকরে ভাঙতে পারেন!
মুখ্যসচিবকে লেখা চিঠিতে এই প্রশ্নটাই বড় হয়ে দেখা দিয়েছে।