1477920092_CvLoLe_Students_BengalBoard_PTI_1651487166656_1651487171260

কার্যত অস্বীকার করা হলো সরকার ঘোষিত ‘গরমের ছুটির’ নির্দেশিকা। ২রা মে থেকে গরমের ছুটি ঘোষিত হলেও তা অমান্য করল নৈহাটির ৩টি সরকারি স্কুল। এই স্কুলগুলিকে নিয়ে রীতিমতো আলোচনা শুরু হয়ে গিয়েছে বিভিন্ন শিবিরে।


প্রচন্ড গরমের কারণে রাজ্যের সবকটি স্কুলে গরমের ছুটি এগিয়ে এনে ২ মে থেকেই ছুটি ঘোষণা করেছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই নির্দেশের বিপরীত চিত্র লক্ষ্য করা গেল নৈহাটির ৩টি স্কুলে। নির্দেশিকা অমান্য করেই খোলা রয়েছে স্কুলগুলি। এই ৩ টি স্কুলেই  পরীক্ষা চলছে।

একদিকে যখন সরকারি তরফে জনস্বার্থেই ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে, তা সত্বেও খোলা রয়েছে স্কুল, সবচেয়ে বড় কথা পড়ুয়া বা অভিভাবকরাও সেটায় সম্মত হয়েছেন –এই চিত্র সচরাচর পশ্চিমবঙ্গে এর আগে দেখা যায়নি।  দীর্ঘকালীন স্কুল বন্ধ থাকার কারণেই কি এমন পরিবর্তন! যদি তা হয়, নিঃসন্দেহে সেই পরিবর্তনকে ইতিবাচক বলতে হয়!


এপ্রসঙ্গে অভিভাবকরা সরাসরিই জানিয়েছেন, “স্কুল খোলা আছে, থাক। পরীক্ষা হোক। কারণ এতদিন স্কুল বন্ধ থাকায় বাচ্চাদের পড়াশোনার  ক্ষতি হয়েছে। বাচ্চারা মানসিকভাবে ভেঙে পড়ছে। তাই স্কুল অন্তত পরীক্ষা পর্যন্ত খোলা থাকুক। পরীক্ষাটা হোক। স্কুলের তরফে আমাদের সবার মতামত চাওয়া হয়েছিল। আমরা স্কুল খোলা রাখার পক্ষে সইও করেছি।”

প্রসঙ্গত, শুধু উত্তর ২৪ পরগণার  নৈহাটিই নয় তারকেশ্বরের একটি বিদ্যালয়েও সরকারি নির্দেশিকা অগ্রাহ্য করে স্কুল খোলা রয়েছে। তারকেশ্বরের ‘বালিগরী অধরমনি দত্ত বিদ্যামন্দির’ স্কুলেও পরীক্ষা চলছে বলে জানা গিয়েছে। এই স্কুলে ক্লাস ফাইভ থেকে নাইন পর্যন্ত ছাত্রছাত্রীদের পরীক্ষা চলছে। অভিভাবকদের সঙ্গে  আলোচনার ভিত্তিতেই এই সিদ্ধান্ত। জানিয়েছেন স্কুল কর্তৃপক্ষ।

তবে স্কুলের পরিচালন সমিতির প্রেসিডেন্ট রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়ের মতে, “সরকারি নির্দেশিকা অমান্য করে পরীক্ষা নেওয়া ঠিক হয়নি, ভুল হয়েছে।”
পাশাপাশি তিনি এটাও জানিয়েছেন, “ছাত্রছাত্রীদের সুবিধার কথা ভেবেই শেষদিনের পরীক্ষাটা নেওয়া হয়েছে। আর সেটা অভিভাবকদের সাথে মৌখিক আলোচনা করেই।”

অভিভাবকদেরও বক্তব্য, “পরীক্ষার রুটিন ছুটি ঘোষণার আগেই স্থির করা হয়ে গিয়েছিল। আজ পরীক্ষার শেষ দিন। এই পরিস্থিতিতে হঠাৎ স্কুল বন্ধ করে দেড় মাস পর পরীক্ষা হলে ছাত্রছাত্রীদেরই অসুবিধায় পড়তে হবে। সেই কারণেই আজ পরীক্ষা দিচ্ছে ছাত্রছাত্রীরা।”

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com