VoiceBharat News IMG 20220125 145917

শাহিনবাগের আন্দোলনেই উঠে এসেছিল জেএনইউ ছাত্র শরজিল ইমামের নাম। নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএএ)-এর প্রতিবাদে তাঁর দেওয়া বক্তৃতায় রাষ্ট্রীয় অসন্তোষ তৈরি হয়। বন্দী শরজিল ইমাম একাধিক ক্ষেত্রে জামিন পেলেও, জেলবন্দীই ছিলেন। এবার আরো একবার শরজিল ইমামের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতা, ইউএপিএ ও একাধিক ধারায় চার্জ গঠন করল দিল্লীর একটি আদালত।

VoiceBharat News IMG 20220125 142733


জেএনইউ ছাত্র শরজিল ইমামের আইনজীবি যদিও আদালতের কাছে বরাবরের মতোই দাবি রাখেন, হিংসা অথবা কোনোরূপ সামাজিক ক্ষতির উদ্দেশ্য শরজিলের ছিলনা। তবুও অক্টোপাসের মতোই তাকে পেঁচিয়ে ধরেছিল একাধিক আইনি ধারা, যার ফলে এলাহাবাদ কোর্টে তার জামিন মঞ্জুর হলেও ছাড়া পাননি তিনি। ইউএপিএ (Unlawful Activity Prevention Act) ধারার ফলে জেলেই থাকতে হয়। এবার দিল্লীর আদালত তাঁর বিরুদ্ধে আরো কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করল।

VoiceBharat News images 2022 01 25T132518.441
উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ১৬ জানুয়ারি বিহারের জাহানাবাদ থেকে শরজিল ইমামকে গ্রেপ্তার করা হয়। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল (সিএএ) বিরুদ্ধে আন্দোলনের এক অন্যতম উদ্যোক্তা ছিলেন জেএনইউয়ের এই ছাত্র শরজিল। গনগনে সেই সময়ে আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ে বক্তৃতা দিয়েছিলেন তিনি, যে বক্তৃতাকে ‘উস্কানিমূলক’ দাবি করে অসম, মণিপুর, দিল্লী সহ পাঁচটি রাজ্যের আদালতে মামলা দায়ের করা হয়।

ফেরার ছাত্রকে সেইসময়ে হন্যে হয়ে খুঁজছিল দিল্লী পুলিশ। এমনকি তাঁর দেশের বাড়িতেও পুলিশ হানা দেয়। জেরার জন্য বন্দী করে শরজিলের ছোট ভাইকে তুলে আনার পরেই বিহারের জাহানাবাদে ধরা পড়েছিল শরজিল। বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার সেইসময় প্রতিক্রিয়া দিয়ে বলেছিলেন, “কখনোই দেশের স্বার্থবিরোধী কিছু করা উচিত নয়। ওঁর বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ রয়েছে। আদালতই যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার নেবে।”

সিএএ বিরোধী আন্দোলনের সময়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয় শরজিল ইমামের বক্তৃতার ভিডিও। দিল্লীর জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া এবং উত্তরপ্রদেশের আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয় দুটি জায়গায় বক্তৃতা দিয়েছিলেন জেএনইউয়ের ছাত্র শরজিল ইমাম। যেখা‌নে প্রকাশ্যেই তিনি বলেছিলেন, “অসমকে ভারত থেকে আলাদা করে দিতে হবে। একটি সরু অংশের মাধ্যমে উত্তরপূর্ব ভারত এ দেশের মূল ভূখণ্ডের সাথে জুড়ে রয়েছে। পাঁচ লক্ষ মুসলিম ঘাঁটি গেড়ে বসে পড়লেই, উত্তরপূর্বকে ভারত থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া সম্ভব হবে। আর তাহলেই নরেন্দ্র মোদী সরকারের হুঁশ ফিরবে।”

VoiceBharat News images 2022 01 25T132458.207
শরজিল ইমামের এই বক্তব্য ও তার সামগ্রিক প্রতিক্রিয়ার ফলে শাহিনবাগের আন্দোলনকারী অনেকেই শরজিলের থেকে দূরত্ব অবলম্বন করেছিলেন। আর সেইসময়েই রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে টার্গেট হয়ে ওঠেন শরজিল ইমাম।

সম্প্রতি দিল্লী আদালতের অতিরিক্ত দায়রা বিচারক অমিতাভ রাওয়াত শরজিল ইমামের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে আইপিসি ১২৪ এ, ধর্মীয় কারণে বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে বিভেদ সৃষ্টির কারণে ১৫৩, ১৫৩বি ও ৫০৫ ধারা, আইনবিরুদ্ধ কার্যকলাপের কারণে UAPA এবং তার প্রতিরোধে ১৩ ধারায় মামলা দায়ের করে চার্জ গঠন করেছেন।

 

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com