1647386556_chandrima

তৃণমূল সরকারের মন্ত্রী থাকার সময় কেন্দ্রের আর্থিক বরাদ্দ সম্পর্কে নিজেই তথ্য দিয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। এবার সেই তথ্য তুলে ধরেই শুভেন্দুকে নাস্তানাবুদ করে দিলেন অর্থদপ্তরের প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য।


দুদিন ব্যাপী বিধানসভার বাজেট অধিবেশনের শেষ পর্যায়ে বক্তব্য রাখতে গিয়ে চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য বলেন, “৯০ হাজার কোটি টাকার বেশি কেন্দ্রের কাছ থেকে আমাদের প্রাপ্য। সেই টাকা ওরা দিচ্ছেনা।”
এইপ্রসঙ্গেই বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীকে তাঁরই দেওয়া তথ্য স্মরণ করিয়ে বলেন, “তৃণমূল সরকারে মন্ত্রী থাকাকালীন আপনিই বলেছিলেন, ৯০ শতাংশ থেকে বরাদ্দ অর্থ ৭৫ শতাংশে নামিয়েও রাজ্যের বকেয়া টাকা কেন্দ্র দিতে চায়না। এরপর ৫০-৫০ শতাংশ নেমে আসার পরেও কেন্দ্রের বরাদ্দ টাকা বকেয়াই পড়ে থাকে!”

বিজেপি বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারীকে স্তম্ভিত করে কেন্দ্রের বরাদ্দ অর্থ কমানো এবং বকেয়া টাকার হিসেব তুলে ধরেন চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য।


শুভেন্দু অবশ্য পাল্টা কটাক্ষ করে বলেছেন, “মুখ্যমন্ত্রী প্রকাশ্যেই বলেন লক্ষীর ভান্ডার, স্বাস্থ্যসাথী এসব প্রকল্প চালানোর পর রাজ্যের হাতে টাকা থাকছেনা। অতএব সেতু, হাসপাতাল, রাস্তা এসব চাওয়া যাবেনা। মুখ্যমন্ত্রীর এই সত্য স্বীকার করার সাহসকে কুর্নিশ জানাই। কেন্দ্র যদি বাজার থেকে ঋণ নেওয়া না বাড়াতো, তাহলে রাজ্য সরকার প্রত্যেকমাসে সরকারি কর্মচারীদের বেতনও দিতে পারতনা।”

পাল্টা জবাবে চন্দ্রিমাও বলেন, “যদি কেন্দ্রের কাছে বকেয়া টাকা এনে দিতে পারেন, তাহলে যা যা বলছেন রাজ্যসরকার সব কাজই করে দেখাতে পারবে। রাজ্যসরকার উন্নয়নের কাজ করতে বদ্ধপরিকর।”


এর সদুত্তর দিতে পারেননি শুভেন্দু অধিকারী। বরং ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণে শোনা যায়, তিনি বসে বসেই বলেছেন , “দেবনা টাকা।” এই আচরণ প্রকাশ্যে আসায় নিজের ভাবমূর্তি আরো খাটোই করলেন শুভেন্দু অধিকারী, এমনটাই সচেতন মহলের একাংশ মনে করছেন।

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com