IMG_20220520_142510

ভেঙে ফেলা হোক ঐতিহ্যবাহী জামিয়া মসজিদ! বদলে তার জায়গায় হনুমান মন্দির প্রতিষ্ঠা করে হিন্দুদের পূজো করার অনুমতি দেওয়া হোক ! হিন্দুরা ব্যবহার করবে ওই মসজিদের অভ্যন্তরের জলাশয়! হ্যাঁ,  সম্প্রতি এমনই কিছু দাবি তুলে সরব হয়ে উঠল এক হিন্দুত্ববাদী সংগঠন।

জ্ঞানবাপী মসজিদে শিবলিঙ্গ উদ্ধারের বিতর্ক মিটতে না মিটতেই নিয়ে এবার কর্ণাটকের জামিয়া মসজিদ নিয়ে উঠল চাঞ্চল্যকর দাবি। জামিয়া মসজিদের নিচে ছিল একটি সুপ্রাচীন হনুমান মন্দির! এমনই দাবি তুলে সোচ্চার হয়ে উঠেছে এক হিন্দুত্ববাদী সংগঠন।

জামিয়া মসজিদের নিচে আসলে হনুমান মন্দির ছিল এই দাবি তুলে এক হিন্দুত্ববাদী সংগঠন মসজিদ ভেঙে হনুমান মন্দির প্রতিষ্ঠার জোরালো দাবি তুলে আইনের দ্বারস্থ হয়েছে।


গত মঙ্গলবার কর্নাটকের মান্ডিয়ায় ডেপুটি কমিশনারের কাছে আবেদনপত্র জমা দিয়ে এই হিন্দু্ত্ববাদীরা দাবি রেখেছে, জামিয়া মসজিদে পুজোর অনুমতি চাই। সুতরাং জামিয়া মসজিদের ভেঙে ফেলে হনুমান মূর্তি প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

প্রাচীন হনুমান মন্দিরের অস্তিত্বের দাবি তুলে এই ঐতিহ্যশালী মসজিদ ভেঙে ফেলার সপক্ষে যুক্তি কী? ডেপুটি কমিশনারের কাছে জমা দেওয়া আবেদনপত্রের বয়ান অনুযায়ী, ‘ইতিহাস বলছে একবার টিপু সুলতান পার্সিয়া খালিফকে একটি চিঠি লিখেছিলেন। সেখানে জানিয়েছিলেন একটি হনুমান মন্দিরের কাঠামো ভেঙেই এই জামিয়া মসজিদ তৈরি করা হয়েছে। আর সেই কারণেই এই মসজিদ ভেঙে পুনরায় হনুমান মন্দির প্রতিষ্ঠা করতে দেওয়ার অনুমতি দিতে হবে।’


কেবলমাত্র মন্দির প্রতিষ্ঠার দাবিই নয়, জামিয়া মসজিদ সংলগ্ন জলাশয়েও হনুমানভক্ত হিন্দু পূণ্যার্থীদের পুণ্যস্নানের অনুমতি চাইছে এই হিন্দুত্ববাদী সংগঠন। এই সংগঠনের দাবি কতদূর সত্য তা জানার জন্য একমাত্র পুরাতত্ত্ববিভাগেরই হস্তক্ষেপ প্রয়োজন।

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com