images - 2022-01-07T101059.607

“রোজ কত কী ঘটে যাহা তাহা, এমন কেন সত্যি হয়না আহা!
ঠিক যেন এক গল্প হত তবে
শুনত যারা অবাক হত সবে।”
বীরপুরুষ কবিতায় লেখা বিশ্বকবির এই লাইনগুলি শিশুদের চিত্তাকর্ষক কল্পনাপ্রসূত ইচ্ছের কথা বললেও, বাস্তব পৃথিবীতে আকছার এর প্রতিফলন দেখা যায়।

“Truth is stranger than Fiction.” সত্যিই বাস্তবে এমন অনেক কিছুই মাঝে মাঝে ঘটে, কল্পনাকেও যা ছাড়িয়ে যেতে পারে। তার কিছু আমরা হঠাৎ জানতে পারি, আবার অনেককিছু অগোচরে থেকে যায়। ‘হ্যালির ধূমকেতু’ অনেকটা তেমনই। পাঠ্য বইতে আমরা কমবেশি সকলেই ধূমকেতুর কথা পড়েছি, ‘হ্যালির ধূমকেতু’ যার মধ্যে অন্যতম। নামটি অবশ্য ইংরেজ জ্যোতির্বিজ্ঞানী এডম্যান্ড হ্যালি-র নাম থেকেই এসেছে। এই ধূমকেতুর একটা রোমাঞ্চকর বিশেষত্ব রয়েছে। আসুন জেনে নেওয়া যাক।


এই ধূমকেতুকে প্রতি ৭৫ বছর অন্তর পৃথিবীর কাছাকা‌ছি দেখা যায়। এটাই নিশ্চিতভাবে প্রমাণ করে দেখান জ্যোতির্বিজ্ঞানী এডম্যান্ড হ্যালি।

মারা যাবার আগে তিনি একরকম ভবিষ্যদ্বাণীই করে গিয়েছিলেন ১৭৫৮ সালে ধূমকেতুটিকে আবার পৃথিবীর কাছাকাছি দেখতে পাওয়া যাবে। বিজ্ঞানী মারা যান ১৭৪২ সালে, আর আশ্চর্যজনকভাবে বিশ্ববাসী তাঁর ভবিষ্যদ্বাণী সত্যিই দেখতে পায়। এই কারণেই নামকরণটি তাঁর নামেই রাখা হয়েছিল। এরপর প্রতি ৭৫ বছর অন্তর বেশ কয়েকবার হ্যালির ধূমকেতুকে দেখতে পাওয়া গিয়েছে। শেষ দেখা যায় ১৯৮৬ সালে, সুতরাং আমরা ধরে নিতে পারি ২০৬১ সালে আবার সে আসবে। ধূমকেতু কাছে এলে পৃথিবীর ওপর কোনো প্রভাব পড়ে কিনা এটা তর্কসাপেক্ষ। তবে মার্কিন রসসাহিত্যিক মার্ক টোয়েনের জীবন ও মৃত্যুর সাথে এই ধূমকেতুর আশ্চর্য যোগাযোগ লক্ষ্য করা গিয়েছিল যা শুনলে তাক লেগে যাবে।


মার্ক টোয়েনের জন্ম ১৮৩৫ সালে, যেবার হ্যালির ধূমকেতু পৃথিবীর সন্নিকটে দেখা দিয়েছিল। হিসেব অনুযায়ী ৭৫ বছর পর তার ফিরে দেখা দেওয়ায় কথা তো ছিলই। জীবনের প্রান্তবেলায় ১৯০৯ সালে মার্ক টোয়েন মজার ছলেই বলেছিলেন ,”ধূমকেতুর সাথেই আমি পৃথিবীতে এসেছিলাম। আগামী বছরই আবার ধূমকেতুটি পৃথিবী ঘুরে যাবে। তার সাথে আমিও হয়তো চলে যাব।” আর সেটাই সত্যি হয়েছিল!

পরের বছর ১৯১০ সালে নির্ভুলভাবে হ্যালির ধূমকেতুকে দেখতে পাওয়া যায়। সেই বছরই ২১ এপ্রিল মার্ক টোয়েনের জীবনাবসান হয়।

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com