IMG_20220424_210934

সম্প্রতি আয়োজিত হয়ে গেল ২ দিনব্যাপী বিশ্ববাংলা বাণিজ্য সম্মেলন। পরপর তিনবার রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এবারের একমাত্র লক্ষ্যই হল শিল্পায়ন। বাণিজ্য সম্মেলনের ভাষণে সেই সম্ভাবনার কথাই তুলে ধরলেন তিনি।


এদিনের অনুষ্ঠান মঞ্চে দাঁড়িয়ে শিল্পপতিদের উদ্দেশ্যে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “বাংলায় স্থিরতা আছে। বাংলা স্বচ্ছ ও নিরাপদ। সম্পূর্ণ আস্থা রেখে বিনিয়োগ করুন। বাংলা আপনাদের নিরাশ করবেনা।”
তবে শিল্পের ক্ষেত্রে পরিকাঠামোর পাশাপাশি পরিবেশটাও অত্যন্ত জরুরী। সেক্ষেত্রে শ্রমিকদের ঠিকমতো কাজ করতে দেওয়ার বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রসঙ্গত কয়েকদিন আগেই হলদিয়া ইন্ডাস্ট্রিয়াল এস্টেটে শ্রমিক আন্দোলনের সূত্র ধরে ঠিকাদারদের দৌরাত্ম্যের খবর প্রকাশ হয়ে পড়ে। এবার সেইসব ঠিকাদারদের বাগে আনতে কড়া পদক্ষেপ নিতে চলেছে পশ্চিমবঙ্গের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার।

 

এমনকি শাসকদলের সাথে ওঠাবসা যাদের, তারাও বিন্দুমাত্র ছাড় পাবেননা। সেইমতো তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠন INTTUC-র উদ্দেশ্যেও এই মর্মে নির্দেশিকা জারি করেছে সরকার।
সরকারের নির্ধারিত প্রথম শর্ত,কোনও সংস্থার মালিক বা মালিকপক্ষের প্রধান ব্যক্তি তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠনের সদস্য হতে পারবেননা। পশ্চিমবঙ্গের শিল্পক্ষেত্রগুলিতে ঠিকাদার ও তাদের প্রভাব বিস্তারের ক্ষেত্রে শাসক ঘনিষ্ঠ শ্রমিক নেতাদের দাপটের ফলে কাজের পরিবেশ নষ্ট হবার একাধিক অভিযোগ ইতিমধ্যে এসেছে। ফলে এবার কড়া হাতে রাশ টানতে চাইছে সরকার।


এছাড়াও একগুচ্ছ নির্দেশিকায় ঠিকা শ্রমিকদের নাম, পরিচয় নথিভুক্তি, মাসের ন্যুনতম ২৪ দিনের কাজের নিশ্চয়তা প্রদান, পিএফ-ইএসআইয়ের টাকা সুনিশ্চিত করা প্রভৃতি বিষয়ের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি শ্রমিকদের ইউনিফর্ম, শারীরিক নিরাপত্তার জিনিসপত্র সরাসরি কর্মীদের সংস্থা থেকেই প্রদান করবে। এক্ষেত্রেও ঠিকাদারদের হস্তক্ষেপ সীমিত করা হতে চলেছে।

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com