IMG_20220522_135756

হিন্দু বাড়িতে বিয়ে হলো মুসলিম রীতি মেনেই। পাশাপাশি হিন্দুমতে মালাবদল। মছলন্দপুরের বসু বাড়ির অনন্য এই বিয়ের অনুষ্ঠানের সাক্ষী রইলেন ৯৫০ আমন্ত্রিত অতিথিরা।


বসু বাড়ির পরিচারিকা ছিল খালেদা খাতুন। তবে বসু পরিবারের কর্তা-কর্ত্রী সকলেই তাকে বাড়ির বড় মেয়ে বলেই মনে করতেন। তারই বিয়ের ধুমধাম আয়োজন। কোনোপ্রকার সামাজিক দায়বদ্ধতা কি এর পেছনে কাজ করেছে।
উত্তরে বিষ্ণু বসু জানান,”একেবারেই তা নয়। খালেদা আমাদের বাড়ির বড় মেয়ে। আমার বাড়িতে মোট ৬জন মেয়ে। তার মধ্যে একজনের বিয়ে হলো।”


মায়ের হাত ধরে সাত বছর বয়সে মায়ের হাত ধরে মছলন্দপুরের রাজবল্লভপুর গ্রামের এই বসু পরিবারে আসে খালেদা খাতুন। স্বামীহারা মা বসুপরিবারে পরিচারিকার কাজে বহাল হন। সেই থেকে এখানেই বাড়ির মেয়ের মতো বড় হয়েছে খালেদা।

এই পরিবারই খালেদার বিয়ের দায়িত্ব গ্রহণ করে তা ধুমধাম সহকারে পালন করেছেন, শুধু তাই নয় এই ঘটনা সকলপ্রকার সম্প্রীতির এক উদাহরণ হয়ে উঠল।
শুনলে আশ্চর্য হতে হয়, বসু পরিবার কখনোই ১০ বছর বয়সী নাবালিকা মেয়েকে বাড়ির পরিচারিকার কাজ করাননি। অন্যান্য মেয়েদের সাথেই বেড়ে উঠেছে সেই মেয়ে। পাত্রস্থ করার দায়ভারও তুলে নিয়েছে এই পরিবার। পাত্র সুজন মন্ডল এই বাড়িরই ড্রাইভার।

বাদুড়িয়ার ঘোষপুরের সুজন মণ্ডল জাতিতে মুসলিম। তাই দুজনের মুসলিম মতেই বিয়ে হয়। কিন্তু যে কিনা বসু পরিবারের বড় মেয়ে সেখানে মালাবদল না হলে আচার সম্পূর্ণ হবে কীকরে? সেই খামতিও রাখা হয়নি। মুসলিম মতে বিয়ের পাশাপাশি হিন্দুমতে দুজনের মালাবদলও হয়।


ছিল খাওয়া দাওয়ারও এলাহি আয়োজন। ডাল ,ভাত থেকে ২ রকম মাছ, মাংস, ২ রকম মিষ্টি ও আইসক্রিম। ত্রুটি রাখা হয়নি কোথাও। আমন্ত্রিত ৯৫০ অতিথি এই বিয়ের বিশেষ সুখ্যাতি করেছেন।

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com