1650088182_haskhali-cbi

গতকাল শুক্রবারই হাঁসখালিতে হানা দিয়েছে সিবিআই। অভিযুক্ত সোহেল গয়ালির বাড়িতে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত চিরুনি তল্লাশি চালান সিবিআই অফিসাররা। শ্মশানকর্মীদের সাথেও তাঁরা দেখা করেছেন। মাত্র একদিনেই উঠে এসেছে অপ্রকাশিত তথ্যসূত্র যা তদন্তে নতুন মোড় দেবে বলেই সিবিআই আধিকারিকরা মনে করছেন।

Picture courtesy :- ANI

তৃণমূল নেতা ব্রজগোপাল গয়ালির পুত্র সোহেল গয়ালির বাড়িতে তল্লাশি চালাতে গিয়ে সিবিআই অফিসারদের নজরে পড়েছে ঘরের মেঝেয় ফোঁটা ফোঁটা রক্তের দাগ। প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে কি ঘরের মধ্যেই নির্যাতিতার রক্তপাত শুরু হয়েছিল? এখানেই কি অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন তিনি?

সোহেল গয়ালির ঘরে পাওয়া রক্তের দাগ অনেকগুলি অজানা প্রশ্ন উস্কে দিচ্ছে। মেয়েটির সাথে আদৌ কি তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল? নাকি উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে, পরিকল্পিতভাবে এই ঘরে তাঁকে আনা হয়েছিল? যদি প্রেমসম্পর্কই থাকে, তাহলে এই ঘরে এমন ঘটনা ঘটল, অথচ মেয়েটি ঘর থেকে বেরিয়ে বাড়িতে পৌঁছনো পর্যন্ত কেন তার খবর নিলনা সোহেল? আর যদি এই ঘরে কোনওকিছুই না হয়ে থাকে তবে রক্তের দাগ এল কীকরে? এমনই একাধিক প্রশ্ন উঠেছে।


এছাড়াও তদন্তে এদিন সোহেল গয়ালির বাড়ির পেছনে একটি সেলফোন পাওয়া যায়। সেটি কার, খতিয়ে দেখা চলছে। শুক্রবারের তদন্তে শ্মশানকর্মীদের সাথেও কথা বলেছেন সিবিআই অফিসাররা। মেয়েটির দেহদাহের সময় কারা কারা শ্মশানে ছিল, সেসম্পর্কে বিস্তারিত তথ্যপ্রযুক্তি নেওয়া হয়। কারণ মেয়েটির দেহ ডেথসার্টিফিকেট ছাড়াই সাততাড়াতাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া এবং চটজলদি আগুন ধরাতে কেরোসিনের ব্যবহারের প্রসঙ্গ জড়িত রয়েছে।


ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞরা বিভিন্ন স্যাম্পেল এদিন পরীক্ষার জন্য সংগ্রহ করেছেন। ফিঙ্গার প্রিন্টও নেওয়া হয়েছে। এইমূহুর্তে সোহেল গয়ালিকে সামনে বসিয়ে সরাসরি জেরা করতে চাইছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিবিআই। জেরায় আরো কী কী নতুন তথ্য বেরিয়ে আসে সেটাই এখন জানার অপেক্ষা।

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com