IMG_20220601_180438

কোভিডে মৃত ব্যক্তির সন্তানদের রক্ষণাবেক্ষণের জন্য কাজে লাগানো হবে ‘পিএম কেয়ারস ফান্ড’। এই ফান্ড থেকে সেইসকল অনাথ পিতৃ-মাতৃহীন সন্তানদের জন্য আর্থিক সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।
কোভিডে বাবা-মাকে চিরতরে হারিয়েয়েছে এমন ৪ হাজার শিশুদের ‘পিএম কেয়ার ফান্ড’ থেকে প্রতিমাসে ৪,০০০টাকা করে সাহায্য প্রদানের ঘোষণার পাশাপাশি শিশুদের উদ্দেশ্যে চিঠি লিখে বিশেষ বার্তা দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদী।

IMG_20220601_175912


প্রকল্পটির সূচনায় ‘পিএম কেয়ারস যোজনাভুক্ত’ বেশ কিছু অনাথ শিশুকে ইতিমধ্যেই বৃত্তির চেক, ব্যাঙ্কের পাশবুক, স্বাস্থ্যবিমার কাগজপত্র তুলে দেওয়া হয়েছে। তাদের উদ্দেশ্যে লেখা চিঠিতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আশ্বাস দিচ্ছি, এই লড়াইয়ে তোমরা একা নও, দেশ তোমাদের পাশে রয়েছে।”

বাবা-মা হারানো সন্তানদের সমবেদনা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদী আরো লিখেছেন, “তোমরা যাতে স্বাধীনভাবে স্বপ্ন দেখতে পারো এবং তোমাদের স্বপ্ন যাতে পূরণ হয়, তা নিশ্চিত করতেই এই প্রকল্প আনা হয়েছে।”

images - 2022-06-01T180219.538
মা-বাবাকে হারানোর প্রবল কষ্টের কথা উল্লেখ করে অনাথ শিশুদের কঠিন পরিস্থিতির মোকাবিলার জন্য শক্ত হতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এইপ্রসঙ্গে ১৯১৮-২০ সালের স্প্যানিশ ফ্লু-র উদাহরণ তুলে ধরে নিজের জীবনের এক কষ্টকর মূহুর্তের কথাও খোলাখুলি প্রকাশ করেছেন তিনি। চিঠিতে মোদী লেখেন, “প্রায় একশো বছর আগে এখনকার মতোই অতিমারির শিকার হয়েছিল গোটা পৃথিবী। সেই অতিমারিতে আমার মা তাঁর মাকে, অর্থাৎ আমার দিদাকে, হারান। সে সময়ে আমার মা এতটাই ছোট ছিলেন তাঁর মায়ের মুখ পর্যন্ত মনে ছিল না। আমার মা গোটা জীবন নিজের মাকে ছাড়া, মায়ের ভালবাসা ছাড়াই কাটিয়েছেন। কল্পনা করে দেখো, কী ভাবে বড় হয়েছেন তিনি!”

এই কাহিনীর মাধ্যমে ছোট। শিশুদের অনুপ্রাণিত করার চেষ্টা করে প্রধানমন্ত্রী তাদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, “তোমাদের মনে যে যন্ত্রণা ও কষ্ট রয়েছে, আমি তা সম্পূর্ণ ভাবে বুঝতে পারছি। এত দিন ভাল-খারাপ, ঠিক-ভুলের পার্থক্য মা-বাবারাই বুঝিয়ে দিয়েছেন। আজ যখন তাঁরা নেই, তখন তোমাদের দায়িত্ব আগের চেয়ে অনেক বেড়ে গিয়েছে। তোমাদের জীবনে যে শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছে, তা পূরণ করার ক্ষমতা কারও নেই। কিন্তু এই লড়াইয়ে তোমরা একা নও। গোটা দেশ তোমাদের পাশে রয়েছে।”

এভাবেই শিশুদের আশ্বাস প্রদানের প্রয়াস নিয়েছেন নরেন্দ্র মোদী। তবে বিরোধীরা প্রশ্ন তুলতে ছাড়েননি। তাঁদের প্রশ্ন তুলেছেন, কোভিড অতিমারির সময়েই তো ‘পিএম কেয়ারস ফান্ড’ গঠিত হয়েছিল। যা চিকিৎসা সংক্রান্ত সামগ্রি ও তো যন্ত্রপাতি কেনার জন্য ব্যবহৃত হয়েছিল। তাহলে কীকরে সেই ফান্ড থেকেই অনাথদের আর্থিক সহায়তা দিতে পারছে সরকার? তবে কি সেইসময়ে ফান্ডের টাকা যথাযথ ব্যবহার করা হয়নি? এই প্রশ্ন তোলার পাশাপাশি বিরোধীদের কটাক্ষ, “দানের টাকায় নির্মিত ফান্ড এখন প্রধানমন্ত্রীর ভাবমূর্তি স্বচ্ছ করতে ব্যবহার করা হচ্ছে।”

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com