IMG_20220524_160027

গত শুক্রবার অর্থাৎ ২০ মে সিনেমা হলে মুক্তি পেল ‘বেলাশুরু’। ‘বেলাশেষের’ স্মৃতি ছুঁয়ে যাচ্ছে এই শেষ থেকে শুরু। আর নন্দিতা রায়- শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের ব্যানারে নির্মিত সেই ছবিটিকে উদ্দেশ্য করেই চমৎকার এক উপহার দিল ‘আমূল।’

ছবিমুক্তির পরেই ‘আমূল’ তাদের  ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেলে একটি বিশেষ সৃষ্টিশীল পোস্টের মাধ্যমে ‘বেলাশুরু’ ছবিকে আহ্বান জানিয়েছে। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের জীবনাবসানের পর এই ছবিটিকে ঘিরে স্মৃতিমেদুরতায় ভাসবেন বাঙালি দর্শককূল,  সেটাই স্বাভাবিক। উল্লেখ্য স্বাতীলেখা সেনগুপ্তেরও জীবনাবসান হয়েছে। ফলে সিনেমাটি যখন হলের মুখ দেখল তখন বরিষ্ঠ নায়ক নায়িকা আর বেঁচে নেই। কিন্তু তাঁরা যে বেঁচে থাকবেন তাঁদের কাজের মাধ্যমে সেই বার্তাই যেন বয়ে আনল ‘বেলাশুরু।’ তাই নজর জুড়িয়েছে সিনেমার পোস্টার, যেখানে সৌমিত্র স্বাতীলেখা সেনগুপ্তের চুল আঁচড়ে দিচ্ছেন। আর এই পোস্টারের ছবি ঘিরেই ‘আমূল’ তাদের সৃষ্টিপ্রয়াস তুলে ধরেছে।

পোস্টারের ছবিটির অনুরূপ একটি ছবিতে দেখা যাচ্ছে সৌমিত্র চুল আঁচড়ে দেওয়ার সময়ে চিরপরিচিত সেই বিজ্ঞাপনের ‘আমূল গার্ল ‘ স্বাতীলেখার সামনে হাতআয়না মেলে ধরেছে। ছবিটির ওপরে ও নিচে ট্যাগলাইন —“এই ‘বেলা’ কখনও শেষ হবে না –আমূল, স্বাদ এর থেকেই ‘শুরু’।”


বিবরণে লেখা হয়েছে,  “বেলাশুরু, সিনেমাটি শ্রী সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় এবং শ্রীমতি স্বাতীলেখা সেনগুপ্তের কামব্যাক তুলে ধরেছে- ভারতীয় চলচ্চিত্রে এই প্রথমবার কোনও সিনেমার প্রধান অভিনেতা ও অভিনেত্রী উভয়েই মারা গিয়েছেন।”
‘আমূল’-এর এই ট্রিবিউট নেটিজেনদের বিশেষ নজর কেড়েছে। নন্দিতা-শিবপ্রসাদও আপ্লুত হয়েছেন নিশ্চয়ই। কেননা, এই ‘বেলা’-র ‘শেষ’ থেকে ‘শুরু’ তো তাঁরাই করেছেন।

By Partha Roy Chowdhury (কিঞ্জল রায়চৌধুরী)

Partha Roy Chowdhury (Bengali: কিঞ্জল রায়চৌধুরী) is staff journalist VoiceBharat News. email: kinjol@voicebharat.com